ফেঞ্চুগঞ্জে করোনার ভয়ে হাসপাতাল থেকে পালালেন রোগী



ফেঞ্চুগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি:

সোমবার প্রথম করোনা ভাইরাস আক্রান্ত কোভিড-১৯ এর একজন রোগী শনাক্ত করা হয় সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে। আক্রান্ত রোগী হাসপাতালের একজন নার্স (সেবিকা) এখবর ছড়িয়ে পড়লে আতংক দেখা দেয় উপজেলা জুড়ে।

ওই রাতেই সেবিকার বাসস্থান (কোয়ার্টার) লকডাউন করেন হাসপাতালের টিএইচও ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার। কিন্তু বিপত্তি ঘটে রাতে। খবর পাওয়া যায় হাসপাতালে ভর্তি থাকা রোগীদের মধ্যে কয়েজনকে রাতেই ছেড়ে দেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। যাদের করোনা পরিক্ষার জন্য নমুনাও সংগ্রহ করা হয়নি।
মঙ্গলবার সকালে হাসপাতালের অন্যান্য রোগীদেরও ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানা যায়। এরকম খবরে ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয়রা।
এ ব্যাপারে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. কামরুজ্জামান জানান, রোগী আছে কিন্তু সীমিত পরিসরে। আর পালিয়ে যাওয়া রোগীদের আনতে লোক পাঠানো হয়েছে। অন্যদিকে রোগী ছেড়ে দেওয়ার প্রশ্নের জবাবে হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক শাহ এমাদুর রহমান রিপন বলেন, রোগী ছিলেন ৮জন এর মধ্যে ২জন পালিয়েছেন এবং বাকি ৬জন আছেন। বাকি ৬জনকে ওয়ার্ডে দেখা গেল না কেন এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রুগীরা সিরিয়াস রোগী নয়, এরা এদিক ওদিক চলাফেরা করে তাই হয়ত দেখেন নি।

এমতাবস্থায় হাসপাতাল থেকে এভাবে রোগী পালিয়ে যাওয়ায় করোনা ভাইরাসের বিস্তারের আশংকা বেড়ে যাওয়ার ভয়ে উদ্বিগ্ন স্থানীয় সচেতন মহল।

শেয়ার করুন!