সিলেট জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খাদ্য পেলও ট্রাক শ্রমিকরা



ছবি-সিএনবাংলাদেশ।
স্টাফ রির্পোটার, সিলেট :

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রভাবে সারাদেশের মতো সিলেটেও কর্মহীন হয়ে পড়েছে হাজারো ট্রাক শ্রমিক। আর এসময় সকল অসহায় শ্রমিক পরিবারের পাশে এসে দাঁড়িয়ে সিলেট জেলা ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতি। প্রতিষ্ঠানটি নিজ তহবিলসহ বিভিন্ন তহবিল থেকে পাপ্ত অর্থ সহযোগিতার মাধ্যমে জেলায় কর্মহীন হয়ে পরা শ্রমিকদের মধ্যে খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে।

এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার (১৫ মে) সিলেট জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সদর উপজেলার ৩ নং খাদিম নগর ইউনিয়ন ও ৪ নং খাদিম পাড়া ইউনিয়নের ট্রাক শ্রমিকদের মধ্যে সরকারি খাদ্য সহায়তা প্রদান করেন সিলেট জেলা প্রশাসন।

সিলেট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কাজী মহুয়া মমতাজ তার অফিসের সামনে নিজে সরকারি এ খাদ্য সহায়তা শ্রমিকদের হাতে তুলে দেন। এ সময় ট্রাক মালিক সমিতির সকল নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সহায়তা প্রদানকালে সিলেট জেলা ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘সিলেট জেলা প্রশাসনের উদ্যোগেও সিলেটের প্রত্যন্ত অঞ্চলে প্রতিদিন হাজার হাজার শ্রমিকের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হচ্ছে। কিন্তু সরকার শ্রমিকদের মধ্যে ত্রাণ দিচ্ছে না বলে অপপ্রচার চালাচ্ছে ষড়যন্ত্রকারী বিএনপি নেতা গোলাম হাদী সাইফুল।’

তারা আরও বলেন, ‘সরকার যখন করোনা মোকাবেলায় সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তখন একটি মহল অপপ্রচার চালিয়ে অস্থির পরিবেশ সৃষ্টির পায়তারা চালাচ্ছে।অপপ্রচারকারী সরকারি নিষিদ্ধ বাতিলকৃত অবৈধ তথাকৃত ট্রাক গ্রূপের ষোঘুষিত সভাপতি নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিএনপি নেতা গোলাম হাদী সাইফুল। তারা এই অপপ্রচারের বিরুদ্ধে ত্বরিত ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানান।’

এ সময় সিলেট জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি সৈয়দ মকসুদ আহমদ বলেন, ‘সিলেট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মহুয়া মমতাজকে আমি বিষয়টি মুঠোফোনে অনুরোধ করেছি, তিনি যেনো দ্রুত এই অপপ্রচারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। সেজন্য শ্রমিকদের খাদ্য সহায়তা বিতরণে যাতে কারচুপি না হয় সেজন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অফিস থেকে সরাসরি এ সহায়তা প্রদান করা হলো।’

সৈয়দ মকসুদ আহমদ আরও বলেন, ‘করোনা দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকার সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ট্রাক কাভার্ড ভ্যান মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে ২ এপ্রিল ও ৬ এপ্রিল প্রায় ৪ হাজার শ্রমিকের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হয়। এছাড়া করোনা ভাইরাসের প্রভাব শুরু হওয়ার প্রথম দিকেই মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে ৫ হাজার শ্রমিক পরিবারের মধ্যে ত্রাণ প্রদান করা হয়। এছাড়াও সিলেট-১ আসনের এমপি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী উদ্যোগে আরও কয়েক হাজার শ্রমিক পরিবারের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।’

এ ব্যাপারে সিলেট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কাজী মহুয়া মমতাজ বলেন, ‘অপপ্রচারকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যারা অপপ্রচার চালাচ্ছেন, তা অপরাধের পর্যায়ে পড়ে। অপপ্রচারকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

শেয়ার করুন!