অপূর্বকে জড়িয়ে গুজব ছড়ালে আইনি ব্যবস্থা



বিনোদন প্রতিবেদক :

ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব ও নাজিয়া হাসান অদিতির সাজানো সংসার ভেঙে গেছে। করোনার মধ্যেই ৯ বছরের দাম্পত্য জীবনের সমাপ্তি হলো তাদের। শোনা যাচ্ছে, চলতি বছরের শুরুতে বিবাহ বিচ্ছেদ হয় তাদের। এতদিন বিষয়টি গোপন ছিল। রবিবার (১৭ মে) ডিভোর্সের খবর প্রকাশ্যে আনেন অদিতি।

এই দম্পতিকে অনেক পছন্দ করতেন নাটকের দর্শকরা। তবে বিয়ে ভাঙার সংবাদ প্রকাশ হতেই অবাক হয়েছেন অনেকেই। এত সুন্দর একটা সংসার ভেঙে যাওয়ার কারণ খুঁজতে শুরু করেন অপূর্বের ভক্তরা। সংসার ভাঙার পেছনে অনেক কারণ আছে বললেও, আলাদাভাবে কোনো কারণের কথা উল্লেখ করেননি অদিতি।

তবে গুজব উঠেছে এই সংসার ভাঙার পেছনে রয়েছেন অভিনেত্রী তানজিন তিশা। কয়েকটি অনলাইন খবরও প্রকাশ করেছে। অপূর্ব-তিশা জুটির প্রচুর নাটক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। গুজব ছড়িয়েছে নিয়মিত জুঁটি বেঁধে অভিনয় করতে গিয়ে সত্যিই সম্পর্কে জড়ান তারা। অপূর্বের স্ত্রী ব্যাপারটি নিয়ে আপত্তি জানান। অপূর্ব তিশার সঙ্গে সম্পর্ককে শুধু বন্ধুত্ব বলে অবিশ্বাস করেন অদিতি। সব মিলিয়ে অভিযোগের তীর এখন তিশার দিকে। এমন গুজবে কান না দিতে আহ্বান জানিয়েছেন তানজিন তিশা। এমনকি গুজব যারা ছড়াবেন তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেবেন বলেও হুমকি দিয়েছেন তিনি।

সোমবার (১৮ মে) ভোরে নিজের ফেরিফাইড ফেসবুক পেজে এক পোস্টে তানজিন তিশা লিখেছেন, আমি সাধারণত গুজবে সাড়া দিই না। তবে আজ আমি অনুভব করছি যে, কয়েকটি অনলাইন সংবাদপত্রে প্রকাশিত চলমান গসিপ বন্ধ করা উচিত। দয়া করে আমার নামটি ব্যবহার করবেন না। এতে আমারসহ শিল্পী এবং তার পরিবারের চলমান পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। আমি সত্যিকার অর্থে বিশ্বাস করি যে, কেউ আমার খ্যাতি-কুখ্যাতে ইচ্ছাকৃতভাবে এটি তৈরি করছে।

শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছে অনুরোধ করে তিশা বলেন, দয়া করে এমন খবর বিশ্বাস করবেন না, যার কোনও সত্যতা নেই। আমি আপনাদের সবাইকে অনুরোধ করছি, যেন এই গুজবে আর ভাগ না বসিয়ে এবং ছড়িয়ে না দেন। কারণ, ভুয়া খবর ছড়িয়ে দেয়াও একটি সাইবার অপরাধ।

শেয়ার করুন!