কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের পর পুলিশ কনস্টেবল’র ১৫ লক্ষ্য টাকা যৌতুক দাবি!



পুলিশ কনস্টেবল রিপন সিংহ, ছবি-সিএনবাংলাদেশ।
ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি :

ঠাকুরগাঁওয়ে সদর উপজেলার ইয়াকুবপুর গ্রামে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কলেজছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে পুলিশ কনস্টেবল রিপন সিংহের বিরুদ্ধে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ৩নং- ধনতলা ইউপি, বগাদিগী (লাহিড়ী) রবিন্দ্রনাথ সিংহের ছেলে পুলিশ কনস্টেবল রিপন সিংহের সঙ্গে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ইয়াকুবপুর গ্রামের এক কলেজছাত্রীর ৫ বছর আগে মোবাইল ফোনে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। সম্পর্ক চলাকালে সে কলেজ ছাত্রীকে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যায়। এবং বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০১৭ সালের ৩রা নভেম্বরে দিনাজপুর শহরের হোটেল হিমাচলে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সেই ছাত্রীর সাথে দৈহিক সম্পর্ক করে। এরপর তার এবং কলেজছাত্রীর আত্মীয়ের বাসায় নিয়ে গিয়ে ব্ল্যাকমেইল করেও একাধিকবার দৈহিক সম্পর্ক করে। এরপর ওই কলেজ ছাত্রী পুলিশ কনস্টেবলকে বিয়ের কথা বললে সে বিভিন্ন বুঝ পরামর্শ দিয়ে কলেজছাত্রীকে বাড়ি থেকে ১৫ লক্ষ্য টাকা নিতে বলে। যা কলেজ ছাত্রীর পরিবারের পক্ষে এতো টাকা দেওয়ার সামর্থ্য নাই। বর্তমানে কলেজছাত্রী তাকে বিয়ের কথা বললে সে বিভিন্ন তালবাহানা করে এবং ১৫লক্ষ্য টাকা যৌতুক দাবি করে। কলেজছাত্রীর বাবা তাকে ৪লক্ষ্য টাকা যৌতুক দিয়ে সম্মতি হন। কিন্তু সে অন্যখানে ১৭লক্ষ্য টাকা যৌতুক নিয়ে বিবাহ করার চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভুগী কলেজ ছাত্রী। পরে এবিষয়ে কোন উপায় না পেয়ে কলেজ ছাত্রী দিনাজপুর পুলিশ সুপার বরাবরে গত (১৮ জুন) এনিয়ে একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন বলে জানা যায়।

‌’অভিযুক্ত পুলিশ কনস্টেবল রিপন সিংহের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।’

এ ব্যাপারে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কর্মকর্তা মধুসুধন দত্ত জানান, আমরা একটি অভিযোগ পেয়েছি সেটার তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

শেয়ার করুন!