‘সোনfর জুতো জিততে এখন অলৌকিক কিছু করে দেখাতে হবে’



খেলা ডেস্ক :

সিরি ‘আ’ তে কাল ক্যালিয়ারির কাছে ২-০ গোলে হেরেছে জুভেন্টাস। স্কোরকার্ড বুঝিয়ে দিচ্ছে গোল পাননি জুভেন্টাস তারকা রোনালদো। অন্যদিকে ব্রেশিয়ার বিপক্ষে লাৎসিও-র ২-০ গোলের জয়ে লক্ষ্যভেদ করেছেন চিরো ইমোবিল। ইতালিয়ান স্ট্রাইকারের লিগে এ নিয়ে গোলসংখ্যা দাঁড়াল ৩৫। ইউরোপের শীর্ষস্থানীয় লিগগুলোর মধ্যে ইমোবিলের গোলসংখ্যাই সবচেয়ে বেশি। এবার ‘গোল্ডেন বুট’ যে তাঁর হাতেই উঠছে সেটি প্রায় নিশ্চিত।

প্রায়—শব্দটা সৌজন্যবশত। কারণ রোনালদোর হাতে এখনো একটি ম্যাচ আছে। সিরি ‘আ’ তে এবার তাঁর গোলসংখ্যা ৩১। বায়ার্ন মিউনিখ ফরোয়ার্ড রবার্ট লেভানডোফস্কি ৩৪ গোল নিয়ে দ্বিতীয়। কিন্তু বুন্দেসলিগার মৌসুম শেষ হওয়ায় গোলসংখ্যা বাড়ানোর সুযোগ পাচ্ছেন না পোলিশ স্ট্রাইকার। রোনালদো ও ইমোবিল একটি করে ম্যাচ পাচ্ছেন নিজ নিজ ক্লাবের হয়ে। লাৎসিও তারকার সঙ্গে এরই মধ্যে চার গোল ব্যবধানে পিছিয়ে পর্তুগিজ তারকা। গোল্ডেন বুট জিততে জুভেন্টাসের শেষ লিগ ম্যাচে তাই অলৌকিক পারফরম্যান্সই করতে হবে রোনালদোকে? সেটিও পর্যাপ্ত হয়ে উঠবে না যদি লাৎসিও-র শেষ ম্যাচে গিয়েও জ্বলে ওঠেন ইমোবিল। তবে শেষ ম্যাচে প্রতিপক্ষ নাপোলি হওয়ায় লড়াইটা নিশ্চিতভাবেই কঠিন হবে লাৎসিও-র জন্য।

গোল্ডেন বুট জয়ের দৌড়ে শুধু লিগের গোল বিবেচনায় নেওয়া হয়। ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগে গোলপ্রতি ২ পয়েন্ট করে যোগ হিসেবে। সে হিসেবে ৩৫ গোল করা ইমোবিল ৭০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে। ৩৪ গোল করা লেভানফোস্কি ৬৮ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে। ৬২ পয়েন্ট নিয়ে তিনে রোনালদো। তাঁর চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনা তারকা লিওনেল মেসি (২৫ গোল) ৫০ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচে।

আর এক গোল করলেই সিরি ‘আ’ তে এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলবেন ইমোবিল। ২০১৫-১৬ মৌসুমে ৩৬ গোলের রেকর্ড গড়েছিলেন নাপোলির সাবেক আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার গঞ্জালো হিগুয়েইন। গত ১৩ বছরে মেসি-রোনালদোর বাইরে গোল্ডেন বুট জিততে পেরেছেন মাত্র দুজন খেলোয়াড়। ২০০৮-০৯ মৌসুমে ডিয়েগো ফোরলান এবং ২০১৩-১৪ (যুগ্মভাবে) ও ২০১৫-১৬ মৌসুমে লুই সুয়ারেজ। ইমোবিলের এ তালিকায় যোগ দেওয়া এখন শুধুই সময়ের ব্যাপার।

শেয়ার করুন!