অচিরেই সুপ্রীমকোর্টের সব রায় বাংলায় দেয়া হবে : প্রধান বিচারপতি



ফাইল ছবি।
সিএনবাংলাদেশ অনলাইন :

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, অচিরেই সুপ্রীমকোর্টের সব রায় বাংলায় দেয়া হবে। আমরা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে একটি অনুবাদ সেল গঠন করেছি। তারা এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছে। রবিবার সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন করে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন সুপ্রীমকোর্টের উভয় বিভাগের আইনজীবী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. আখতারুজ্জামান।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেন, গত ডিসেম্বরে আমরা একটি সফটওয়্যারের ব্যবহার শুরু করেছি। যার ফলে সুপ্রীমকোর্টের সব রায় ইংরেজী থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাংলায় রূপান্তরিত হচ্ছে। রূপান্তরের কাজ শেষ হলে আমরা আরও গুছিয়ে নেব। অচিরেই সুপ্রীমকোর্টের রায় বাংলায় দেয়া হবে। যার জন্য আমরা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে একটি অনুবাদ সেল গঠন করেছি। সেটি ইতোমধ্যেই কাজ শুরু করেছে। উচ্চ আদালতসহ সর্বক্ষেত্রে বাংলার ব্যবহার নিশ্চিত করতে ‘বাংলা ভাষা প্রচলন আইন, ১৯৮৭’ রয়েছে; সেটা পুরোপুরি বাস্তবায়ন না হওয়ায় আদালতসহ বিভিন্ন সরকারী দফতরকে প্রায়ই সমালোচনার মুখে পড়তে হয়। ওই আইনের তৃতীয় ধারায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশের সর্বত্র তথা সরকারী অফিস, আদালত, আধা-সরকারী, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান কর্তৃক বিদেশের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যতীত অন্য সকল ক্ষেত্রে নথি ও চিঠিপত্র, আইন আদালতের সওয়াল জবাব এবং অন্য আইনানুগ কার্যাবলী অবশ্যই বাংলায় লিখিতে হইবে।’

এর আগে ১৮ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রীমকোর্টে ‘আমার ভাষা’ নামে একটি অনুবাদ সফটওয়্যার উদ্বোধন করা হয়েছে। এই সফটওয়্যার কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে সুপ্রীমকোর্টের আদেশ ও রায়গুলো ইংরেজী থেকে বাংলায় অনুবাদ করতে সক্ষম হবে। ওই দিন ভার্চুয়ালি প্রধান অতিথি হিসেবে এই সফটওয়্যার উদ্বোধন করেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে যুক্ত ছিলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এবং বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী। এ ছাড়াও এসময় সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগ ও হাইকোর্ট উভয় বিভাগের বেশ কয়েকজন বিচারপতি যুক্ত ছিলেন। অনুষ্ঠানে ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী বলেন, ‘ভারতে তৈরি এই অনন্য অনুবাদ সফটওয়্যার ইনস্টলেশনে অংশীদার হতে পেরে এবং শুভেচ্ছাস্বরূপ বিতরণ করতে পেরে ভারত অত্যন্ত সম্মানিত। এই ধরনের সহযোগিতা কেবল ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যেই সম্ভব হতে পারে, কারণ বাংলা ভারতের অন্যতম স্বীকৃত ভাষা। ভারত এবং বাংলাদেশের বিচারিক ব্যবস্থার উৎস, বিধান এবং ভাষা অভিন্ন।

শেয়ার করুন!