বাজি ধরে সড়কে প্রাণ গেল ২ জনের



গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি :

মোটরসাইকেলের গতির লড়াই নিয়ে বাজি ধরলো তিন বন্ধু। যে সবচেয়ে দ্রুত পুরাতন ব্রহ্মপুত্র সেতু অতিক্রম করবে সে ১০ হাজার টাকা জিতবে। কিন্তু গতির লড়াই শেষ না হতেই চির জীবনের জন্য হেরে গেল এক বন্ধু। লাশ হলো আরো এক অটো যাত্রী। ঘটনাটি ঘটে রোববার রাত পৌনে নয়টার দিকে সালটিয়া-দেওয়ানগঞ্জ-হাজীগঞ্জ সড়কে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের সেতুর ওপর।

নিহতরা হলো- অটো রিকশার যাত্রী কৃষক উজ্জল (২৭), ব্যবসায়ী ও মোটরসাইকেল চালক ইমরান (৩০)।

এলাকাবাসী জানায়, গফরগাঁও উপজেলা পৌর শহরের ৫ নং ওয়ার্ডের পন্ডিতপাড়া এলাকার বাসিন্দা বাবু মিয়ার ছেলে পিয়াল (১৮), একই এলাকার বাসিন্দা আব্দুল রশিদের ছেলে তাসকিন (১৯) ও পৌর শহরের বারী প্লাজার মোবাইল ব্যবসায়ী ইমরান (২৪) রোববার রাতে বাজি ধরে মোটর সাইকেল চালাচ্ছিল। তিনটি মোটর সাইকেল নিয়ে যে সবচেয়ে কম দ্রুততম সময়ে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র সেতু অতিক্রম করতে পারবে সে ১০ হাজার টাকা জিতবে।
বাজি জিততে গিয়ে বেপরোয়া গতিতে তিনটি মোটর সাইকেল চালাচ্ছিল এই তিন যুবক। এ সময় ইমরানের বেপরোয়া গতির মোটরসাইকেলের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে (গফরগাঁও থেকে ছেড়ে) আসা চরআলগীগামী অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।

সংঘর্ষে উপজেলার দত্তের বাজার ইউনিয়নের বিরই গ্রামের আব্দুল হাই এর ছেলে, মোবাইল ব্যবসায়ী মোটর সাইকেল চালক ইমরান হোসেন ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। এ সময় অটোরিকশার যাত্রী চরআলগী নয়াপাড়া গ্রামের তারা মিয়ার ছেলে উজ্জল মিয়া, রুবেল মিয়া, নিধিয়ারচর গ্রামের আসাদ ও মাইজপাড়া গ্রামের সুহেলসহ চারজন গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা ঘটনাস্থল থেকে আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। অবস্থার অবনতি হলে চারজনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে উজ্জল মিয়া মারা যায়।

গফরগাঁও থানার ওসি অনুকুল সরকার বলেন, খবর পেয়ে লাশ ও আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়।

শেয়ার করুন!