বেতার মানুষের কাছে জনপ্রিয় গণমাধ্যম: মহাপরিচালক



স্টাফ রির্পোটার/

বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক আহম্মদ কামরুজ্জামান বলেছেন, বেতার মানুষের কাছে জনপ্রিয় গণমাধ্যম। যার প্রয়োজনীয়তা কখনো ফুরাবে না।

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু হয়ে আজ অবধি গণমানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বেতারের ভূমিকা অবিস্মরণীয়। বেতারের অনেক ইতিহাস ও গৌরবময় অধ্যায় রয়েছে। সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম জনসম্মুখে তুলে ধরার জন্য বেতার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বেতার এখন শুধু একটি যন্ত্র মাধ্যমই নয়। আধুনিক প্রযুক্তির সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশ বেতার এগিয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন এফ.এম ফ্রিকুয়েন্সি ও বাংলাদেশ বেতারের এ্যাপস, ওয়েবসাইট এ মোবাইলের মাধ্যমে বেতারের কার্যক্রম শুনা যাচ্ছে। তিনি শিল্পীদের কথা উল্লেখ করে বলেন, শিল্পীরা বেতারের প্রাণ। সুতরাং শিল্পীদের সম্মানী বৃদ্ধির বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

শনিবার (২০ নভেম্বর) সকালে সিলেটের মিরের ময়দানস্থ বেতার ভবনে কর্মকর্তা, কর্মচারী ও কলাকুশলীদের সাথে মতবিনিময়কালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

কেন্দ্রের আঞ্চলিক পরিচালক আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তারিক এর সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বেতারের কৃষি বিষয়ক কার্যক্রমের পরিচালক মোঃ ফখরুল আলম, সদর দপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক প্রশাসন ও অর্থ মোঃ আল আমিন খান, উপ পরিচালক প্রশাসন ও অর্থ মোঃ মোকছেদ হোসেন, চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক মো: মুজিবুর রহমান, আঞ্চলিক প্রকৌশলীর দায়িত্বে থাকা এ.এইচ.এম ফয়সল, উপবার্তা নিয়ন্ত্রক সঞ্জয় সরকার, উপ আঞ্চলিক পরিচালক মোহাম্মদ আব্দুল হক ও পবিত্র কুমার দাশ, সহকারী পরিচালক প্রদীপ চন্দ্র দাস ও ইফতেকার আলম রাজন, সহকারী বেতার প্রকৌশলী উত্তম চন্দ্র গোপ, সহকারী বার্তা নিয়ন্ত্রক আশেকুল ইসলাম খান এবং বাংলাদেশ বেতার সিলেট কেন্দ্রের সর্বস্তরের কর্মচারী ও কলাকুশলীবৃন্দ। এদিকে ১৯ নভেম্বর বাংলাদেশ বেতার, সিলেট কেন্দ্রের আধুনিকায়ন ও উন্নয়ন প্রকল্পের বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেন মহাপরিচলক আহম্মদ কামরুজ্জান । প্রেস-বিজ্ঞপ্তি

শেয়ার করুন!