‘দেশের বাউল সংগীত মৌলিক সংস্কৃতি বাঁচিয়ে রেখেছে’



সিএনবাংলাদেশ অনলাইন :

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বাউলগান আমাদের শেকড়। এই সংগীত জীবন ও আত্মার কথা বলে। সব সংগীত মনকে পরিশুদ্ধ করে না, আমাদের সংস্কৃতির সঙ্গেও যায় না। আকাশ-সংস্কৃতির হিংস্র যুগে দেশের বাউল সংগীত মৌলিক সংস্কৃতি বাঁচিয়ে রেখেছে।

ইংরেজি নববর্ষের প্রথম দিন গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলার ভাকুম গ্রামে সংসদ সদস্য কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগমের প্রয়াত বাবা বাউল সাধক মধু বয়াতি স্মরণে তিন দিনব্যাপী মধুর মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী আরো বলেন, আকাশ-সংস্কৃতির হিংস্র থাবা আর আধুনিক নানা বাদ্যযন্ত্রের দৌরাত্ম্যের মধ্যে দোতারা’র সংগীত যে এখনো টিকে আছে, সেটিই বাউলগানের বৈশিষ্ট্য। কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগমসহ বাউল শিল্পীরা যখন গান করেন, তখন তাদের সঙ্গে শ্রোতাদের একটা মনের যোগাযোগ স্থাপিত হয়, তারা মানুষের মনের কথা বলেন।সেই জন্যই শত শত বছর ধরে বাউলগান বেঁচে আছে, আরো হাজার বছর থাকবে।

আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এখন আর কেউ ছেঁড়া ও তালি দেওয়া কাপড় পড়ে না। যারা ছেঁড়া কাপড় পড়ে তারা স্টাইল করার জন্য পড়ে। দেশ এখন ডিজিটাল বাংলাদেশে পরিণত হয়েছে। কৃষক মোবাইল ফোনে কৃষি সমস্যার পরামর্শ নিচ্ছেন। বিকাশে টাকা লেনদেন হয়। এখন ভিক্ষুকরা দুই টাকা ভিক্ষা দিলে তাকিয়ে থাকে, ৫ টাকা দিলে ভালো করে দেখে আর ১০ টাকা দিলে খুশি হয়। এসব কিছু হয়েছে দেশের উন্নয়নের জন্য।

কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগমের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি গোলাম মহিউদ্দিন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুর রহমান ও যুবলীগের যুগ্ম-সম্পাদক আলমগীর হোসেন।

এ সময় স্থানীয় সরকার উপপরিচালক (উপসচিব) ফৌজিয়া বেগম, নাট্যনির্দেশক দেবাশীষ দীপ, সাপ্তাহিক সময় এখন আমাদের-এর সম্পাদক কামরুজ্জামান হিমু, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন আহমেদ, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (সিঙ্গাইর সার্কেল) মো. আলমগীর হোসেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহেলা রহমত উল্লাহ, সহকারী কমিশনার হামিদুর রহমান, পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) আব্দুস সাত্তার মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আনোয়ারা খাতুন, উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান রবিউল আলম উজ্জল, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান শারমীন আক্তার, ইউপি চেয়ারম্যান শাহাদাৎ হোসেন, মুসলেম উদ্দিন চোকদার, শওকত হোসেন বাদল, দেওয়ান জিন্নাহ লাটু, রমজান আলী, মিজানুর রহমান মিঠু, আব্দুল হালিম রাজু ও জাহিদুল ইসলাম ভূইঁয়া, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি তমেজ উদ্দিন, সিনিয়র সভাপতি আমজাদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক রমিজ উদ্দিনসহ উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

মেলায় প্রতিদিন সকাল থেকে রাত অবধি চলেবে লালনগীতি, মারফাতি, জারি ও পালাগানসহ বিভিন্ন ভক্তিমূলক গান।

প্রথমদিন দিন গান পরিবেশন করবেন, ফকির সাহাবুদ্দিন ও কাজল দেওয়ান। রাত ১০টার পর শুরু হবে পালাগান। এতে অংশ নিবেন মুক্তা সরকার ও জহির উদ্দিন বাউল।

দ্বিতীয়দিনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান। এদিন পালা গানে অংশ নেবেন রুমা সরকার ও বাবু সুনিল কর্মকার।

তৃতীয় দিনে প্রধান অতিথি থাকবেন মানিকগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য নাঈমুর রহমান দুর্জয়। এদিন সন্ধ্যায় নাটক ‘রূপবান’ মঞ্চস্থ হবে। নাটক শেষে গান পরিবেশন করবেন দেশের বিখ্যাত বাউল শিল্পীরা। এছাড়া প্রতিদিনই গান গাইবেন কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগম এমপি।

এদিকে মধুর মেলায় দেশের প্রখ্যাত বাউল শিল্পীদের মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে। বাউল শিল্পীদের গান শুনতে হাজারো ভক্তবৃন্দ ভিড় করছেন বাউল কমপ্লেক্সে। মেলাকে ঘিরে ভাকুম গ্রামসহ আশপাশের এলাকায় বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। বসেছে গ্রাম্য মেলা। মেলায় নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ছাড়াও বিভিন্ন বাহারি পণ্য ও খাবারের পসরা সাজিয়ে বসেছেন দোকানিরা। বিনোদনের জন্য রয়েছে নাগরদোলা, মিনি ট্রেন ও ইলেকট্রিক নৌকাসহ নানা ধরনের বিনোদনমূলক রাইডস।

শেয়ার করুন!