১১০ টাকা চুরির অপবাদে খুন করা হয় শিশু ছাত্র আকরামকে



স্টাফ রির্পোটার, হবিগঞ্জ/

বানিয়াচং উপজেলার মক্রমপুর ইউনিয়নে অবস্থিত মরহুম সামায়ূন কবির রেজা হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র আকরাম খান (৯) হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। হত্যার সাথে জড়িত একই মাদ্রাসার সহপাঠি ছাত্ররাই। ট্রাংকের টাকা চুরির ঘটনা থেকে সন্দেহ বশত পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করে লাশ গুম করেছিল খুনীরা। কিন্তু তারা পার পায়নি। মাত্র ৪ দিনের মাথায় থানা পুলিশের অধিক তদন্তে খুনের রহস্য উদঘাটন করা হল।

থানা সূত্রে জানা যায়, কিছুদিন পূর্বে মাদ্রাসার ছাত্র ফখরুল মিয়ার ট্রাংক হতে ২ দফায় ১১০ টাকা চুরি হয়। চাউর রয়েছে যে আকরামের একটি চাবি রয়েছে যা দিয়ে মাদ্রাসার অধিকাংশ ট্রাংকের তালা খোলা যায়। এতে তারা আকরামকে সন্দেহ করে। এ বিষয় নিয়ে ফখরুল মিয়া, জাহেদ মিয়া ও ফয়েজ উদ্দীনদের মনে আকরামের বিরুদ্ধে ক্ষোভের সৃষ্টি হয় এবং তাকে সুযোগ পেলে শিক্ষা দিবে বলে পরিকল্পনা করে।

গত ১৬ নভেম্বর প্রতিদিনের ন্যায় আকরাম (৯)সহ অন্যান্য শিশুরা ফজরের আজানের আগে ঘুম থেকে উঠে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত শেষে সকালের নাস্তা খেয়ে সকাল ১০টায় মাদ্রাসায় নিজ বিছানায় ঘুমিয়ে পড়ে। এতে ফখরুল মিয়া (১৬), মোঃ ফয়েজ উদ্দীন (১৩) ও মোঃ জাহেদ মিয়া (১৫) ঘুমানোর ভান করে শুয়ে থাকে। সকাল ১১টায় আকরাম বাথরুমে গেলে এ তিনজন হত্যার উদ্দেশ্যে তাকে পাশের ফিশারীর লাউ গাছের নিচে নিয়ে লাইলনের দড়ি দিয়ে হাত-পা বেঁধে ফেলে। আকরাম শোর চিৎকার দিতে চাইলে তার মুখ চেপে ধরে তারা । তারপর তাকে ইট দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে স্ব-জোরে মাথার ডান পাশে এবং পেটের ডান পাশে আঘাত করে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম করে। এরপরও মৃত্যু নিশ্চিত না হলে আকরামকে ধরাধরি করে পার্শ্ববর্তী ফিশারীতে (জলাশয়) নিয়ে একটি নৌকা সংলগ্ন পানিতে উপুড় করে ফেলে দিয়ে ফখরুল মিয়া (১৬) ভিকটিমের মাথায় ধরে চুবাইতে থাকে। এক পর্যায়ে মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর তারা ভিকটিমকে নৌকা সংলগ্ন পানিতে ফেলে লাশ গোপন করে পুনরায় মাদ্রাসায় এসে ঘুমের ভান করে শুয়ে থাকে। যখন চারদিকে আকরামকে পাওয়া যাচ্ছে না এমন রব উঠে তখন ফখরুল মিয়া (১৬), মোঃ ফয়েজ উদ্দীন(১৩) ও মোঃ জাহেদ মিয়া (১৫) ভিকটিমকে নৌকার নিচ থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় নিহতের মা ফুলতারা বেগম বাদি হয়ে বানিয়াচং থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। গতকাল শনিবার বিকেলে আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন!