সিলেটে ‘আল্লহর দলের’ ৯ সদস্য আটক



সিএনবাংলাদেশ অনলাইন :

সিলেট নগরীর শাহপরান (রঃ) থানাধীন আরামবাগ এলাকার একটি বাসায় গতকাল বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে অভিযান চালিয়ে আল্লাহর দলের ৯ সদস্যকে আটক করেছে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা থেকে আসা এন্টি টেরোরিজম ইউনিটের একটি চৌকস দল সিলেটে এসে এ অভিযান পরিচালনা করে। সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের সহযোগিতায় অভিযানে নেতৃত্ব দেন এন্টি টেরোরিজম ইউনিটের পুলিশ সুপার মোহিদুজ্জামান।

বৃহস্পতিবার বেলা ১টার দিকে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ সদর দফতরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান অতিরিক্ত কমিশনার পরিতোষ ঘোষ।

আটককৃতরা হচ্ছে বগুড়া জেলার এরুলিয়া এলাকার বড় কুমিরা গ্রামের মৃত আব্দুল মান্নান আকন্দের ছেলে মানিক আকন্দ ওরফে মেহেদী হাসান (৩২), নোয়াখালি জেলার মাইজদিহি থানার কৃষ্ণপুর গ্রামের আবুল কালামের ছেলে জহির উদ্দিন বাবর (২০), সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার থানাবাজারের মানিকপুর গ্রামের মৃত মোকাদ্দেস আলীর ছেলে রাসেল আহমদ (২৪), কুমিল্লা জেলার বিবির বাজার এলাকার রাজমঙ্গলপুর গ্রামের আব্দুল আলীর ছেলে আবুল কালাম আজাদ (২০), সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার ঈদগাহ বাজারের খাফনা গ্রামের মুক্তাদির মিয়ার ছেলে কামাল আহমদ (২৫), সুনামগঞ্জ সদরের আলহেরা এলাকার শাহপুর গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে তমি উদ্দিন সুমন (৩০), রাজশাহী জেলার বাগমাড়া এলাকার চেওখালি গ্রামের কায়েম উদ্দিনের ছেলে আশরাফুল ইসলাম (২৯), সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার এলাকার হায়দরপুর গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে জুয়েল আহমদ (২৪) ও সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানার তুরস্তবাগ এলাকারম নলুয়া গ্রামের আলা উদ্দিনের ছেলে মো. স্বপন আহমদ (২১)।

তাদের মধ্যে মানিক আকন্দ ওরফে মেহেদী হাসান (৩২) আল্লাহর দলের সিলেট বিভাগীয় প্রধান, জহির উদ্দিন বাবর (২০) দাওয়া বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত, রাসেল আহমদ (২৪) সিলেট জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত, আবুল কালাম আজাদ (২০) শাহপরাণ থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত, কামাল আহমদ (২৫) সিলেট মেট্রোপলিটন এলাকায়, তমি উদ্দিন সুমন (৩০) কোতোয়ালি থানা ও দক্ষিণ সুরমা এলাকায়, আশরাফুল ইসলাম (২৯) সুনামগঞ্জ জেলায়, জুয়েল আহমদ (২৪) ও মো. স্বপন আহমদ (২১) সিলেট মেট্রোপলিটন এলাকার সদস্য হিসেবে দায়িত্বশীল ছিলেন।

পুলিশ জানায় প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা স্বীকার করে, তারা বাংলাদেশের অখন্ডতা, সংহতি, জননিরাপত্তা ও সার্বভৌমত্ব বিপন্ন করার জন্য এবং জনসাধারণের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি, ধর্মীয় উগ্রবাদী মতাদর্শ প্রচারের মাধ্যমে দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ও নাশকতা ঘটানোর উদ্দেশ্যে গোপন বৈঠক ও বিভিন্ন পরিকল্পনা, প্রশিক্ষণ ও প্রস্তুতি গ্রহণের জন্য একত্রিত হয়ে গোপন মিটিং করছিল।

এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের শাহপরাণ থানায় মামলা রুজু করা হয়েছে।

আটককৃতদের কাছে থেকে মোবাইল ফোন ও সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনার কাগজপত্র উদ্ধার করার কথা জানিয়েছে পুলিশ।

পরিতোষ ঘোষ বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা থেকে আসা এন্টি টেরোরিজম ইউনিটের একটি দল সিলেটে এসে এ অভিযান পরিচালনা করে। সিলেট মহানগর পুলিশের সহযোগিতায় অভিযানে নেতৃত্ব দেন এন্টি টেরোরিজম ইউনিটের পুলিশ সুপার মোহিদুজ্জামান।

আটক ৯ জনকে আজ দুপুরেই ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানান তিনি।

কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে আটককৃত ‘আল্লাহর দলের’ সদস্যরা এখানে অবস্থান করে নাশকতার পরিকল্পনা করছিলো। তবে কি ধরণের নাশকতার পরিকল্পনা করছিলো তা এখনো জানা যায়নি বলে জানানো হয়।

আটককৃতদের মধ্যে চাকরিজিবী ও এনজিও কর্মকর্তাও আছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শেয়ার করুন!