শ্রীমঙ্গলে চা বাগানে কিশোরীকে ‘গণধর্ষণ’, আটক ৩



মৌলভীবাজার (শ্রীমঙ্গল) প্রতিনিধি :

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে চা বাগানের ভেতরে ১৬ বছরের এক কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ।

শুক্রবার (৭ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার শহরতলীর বধ্যভূমি সংলগ্ন ভাড়াউড়া ফিনলে চা বাগানের ভেতরে এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। মেয়েটি সম্প্রতি দিনাজপুর থেকে নিজ বাড়ি শ্রীমঙ্গলে বেড়াতে আসে বলে জানা যায়।

কিশোরীর মা জানান, শহরের ক্যাথলিক মিশন সড়কে ভাড়া বাসায় থাকতেন তারা। দিনাজপুরের ফুলবাড়িয়ায় বাসা বাড়িতে কাজ করতো ওই কিশোরী। গত ৯ দিন আগে বেড়াতে শ্রীমঙ্গলে আসে সে। শুক্রবার সন্ধ্যার পর ইয়াকুব নামে এক ছেলের সাথে বধ্যভূমি এলাকায় বেড়াতে যায়। সেখানে রাত নয়টা পর্যন্ত অবস্থান করে রাস্তার পাশে ঝাল মুড়ি খাওয়া অবস্থায় অপরিচিত এক টমটম চালক বাসায় পৌঁছে দিবে বলে তাদের টমটমে উঠায়। এসময় আগে থেকে সেখানে অবস্থান করা আটককৃত দুই ধর্ষক টমটমে উঠে ভুরভুরিয়া চা-বাগানের নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে ধর্ষকদের একজন মেয়েটির সাথে থাকা ইয়াকুবকে রশি দিয়ে বেঁধে টমটমে আটকে বসিয়ে রাখে, সেখানেই এক নির্জন স্থানে মেয়েটিকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে তারা। রাত সাড়ে দশটার দিকে ধর্ষিতা কিশোরী ও ইয়াকুবকে বধ্যভূমির কাছাকাছি রাস্তায় ধর্ষকরা নামিয়ে দিয়ে টমটম নিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনা জানার পর মেয়েটির মা রাতেই থানায় যান।

এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুস ছালেক জানান, শুক্রবার সন্ধ্যার পর একই এলাকার পূর্ব পরিচিত আঞ্জব আলীর ছেলে অটোরিকশাচালক ইয়াকুব আলীর সঙ্গে বধ্যভূমি এলাকায় বেড়াতে যায় মেয়েটি। সেখানে রাত ৯টা পর্যন্ত ছিল তারা। সড়কের পাশে তারা ঝাল মুড়ি খাচ্ছিল, এসময় অপরিচিত এক টমটম চালক বাসায় পৌঁছে দেবে বলে তাদের টমটমে ওঠায়। এসময় আগে থেকে সেখানে অবস্থানকৃত দুই ধর্ষক টমটমে উঠে ভাড়াউড়া চা-বাগানের ভেতরে নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে ধর্ষকদের একজন মেয়েটির সঙ্গে থাকা ইয়াকুবকে রশি দিয়ে বেঁধে টমটমে আটকে বসিয়ে রাখে। রাত সাড়ে ১০টার দিকে ধর্ষণের শিকার কিশোরী ও ইয়াকুবকে বধ্যভূমির কাছাকাছি সড়কে নামিয়ে দিয়ে টমটম নিয়ে পালিয়ে যায় ধর্ষকরা।

তিনি আরও জানান, ঘটনা জানার পর মেয়েটির মা রাতেই থানায় আসেন। আমরা ভিকটিম ও তার সাথে থাকা ইয়াকুবের কাছ থেকে তথ্যনিয়ে এই ঘটনায় তিনজনকে আটক করা করেছি। তিনজনই প্রাথমিকভাবে ঘটনার দায় স্বীকার করেছে ৷ এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি ৷

আটককৃতরা হলো উপজেলার ভাড়াউড়া চা বাগানের মৃত অনিল দোষাদের ছেলে কৈলাস দোষাদ (২৫) ও একই চা বাগানের মৃত পূজনা মৃধার ছেলে জহর লাল মৃধা (২৯)। আটক দুই জন ওই চা বাগানের পাহারাদার।

পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও জানান ওই কিশোরীকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে ।

শেয়ার করুন!