সিলেটে পুলিশি বাধার মুখে যুবদলের মিছিল



সিএনবাংলাদেশ অনলাইন :

সিলেটে পুলিশি বাধার মুখেই মিছিল করেছে জেলা ও মহানগর যুবদল। শনিবার বেলা ২টার দিকে জেলা যুবদলের সদস্যসচিব মকসুদ আহমদের মুক্তির দাবিতে ওই মিছিল বের করা হয়। পুলিশ যুবদলের সিনিয়র নেতাদের বন্দরবাজারস্থ সমবায় ভবনে অবরুদ্ধ করে রাখলেও অন্যান্য নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে নগরীর কয়েকটি সড়ক প্রদক্ষিণ করেন।

জানা গেছে, জেলা যুবদলের সদস্যসচিব মকসুদ আহমদ বর্তমানে কারান্তরীণ। তার মুক্তির দাবিতে শনিবার পূর্ব নির্ধারিত বিক্ষোভ মিছিল কর্মসূচি পালনে নগরীর বন্দরবাজার কোর্টপয়েন্টে যুবদল নেতাকর্মীরা জড়ো হন। বেলা ২টার দিকে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী মিছিলের প্রস্তুতি নেওয়ার সময় কোতোয়ালী থানার ওসি সেলিম মিঞার নেতৃত্বে পুলিশ বাধা প্রদান করে।

সিলেট জেলা যুবদলের আহবায়ক সিদ্দিকুর রহমান পাপলু জানান, ছয় গাড়ি পুলিশ এসে যুবদল নেতাকর্মীদের বাধা প্রদান করে। এরপরও যুবদল নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে অগ্রসর হওয়ার চেষ্টা করেন। পরে যুবদলের সিনিয়র নেতাদের বন্দরবাজারস্থ সমবায় ভবনে অবরুদ্ধ করে রাখে পুলিশ।

যুবদল নেতারা জানান, পুলিশ সিনিয়র নেতাদের অবরুদ্ধ করে রাখলেও অন্যান্য নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল কর্মসূচি সফল করেন। বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী করিম উল্লাহ মার্কেটের সামনে থেকে নাইওরপুল পর্যন্ত মিছিল নিয়ে যান। তারা বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াসহ সকল ‘রাজবন্দির’ মুক্তি দাবি করেন। সরকারকে ‘প্রতিহিংসার রাজনীতি’ থেকে বেরিয়ে আসারও আহবান জানান তারা।

এদিকে, ভাষার মাসে যুবদলের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বাধা প্রদান করাকে ‘স্বৈরাচারী’ মনোভাব বলে এর নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন জেলা যুবদলের আহবায়ক সিদ্দিকুর রহমান পাপলু।

মিছিল পরবর্তি সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সিলেট জেলা যুবদলের আহবায়ক সিদ্দিকুর রহমান পাপলু।

মহানগর শাখার সদস্য সচিব শাহ নেওয়াজ বক্ত চৌধুরী তারেকের পরিচালনায় এতে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদল নেতার মধ্যে- আনোয়ার হোসেন মানিক, আক্তার আহমদ, তোফাজ্জল হোসেন বেলাল, আসরাফ উদ্দিন ফরহাদ, ময়নুল ইসলাম মঞ্জুর, মিজানুর রহমান নেছার, আব্দুল্লাহ সাফি সাহেদ, লিটন আহমদ, কয়েছ আহমদ, অলিউর রহমান, ফখরুল ইসলাম রুমেল, কল্লোল জ্যোতি বিশ্বাস জয়, মোজাহিদুল ইসলাম জাহাঙ্গির, রায়হান আহমদ, আলী আহমদ আলম, মকসুদুল নোহেল, এহতেসামুল হক সবুজ, সাইফুল ইসলাম, মতিউর রহমান আফজাল, মাসুক আহমদ, জয়নুল ইসলাম জনি, আমিনুল ইসলাম আমিন, আব্দুল মালেক, এসএম পলাশ, অ্যাডভোকেট আব্দুল্লাহ আল মামুন হীরা।

জানতে চাইলে নগরীর কোতোয়ালী থানার ওসি সেলিম মিঞা বলেন, ‘যুবদলের মিছিলকে ঘিরে পুলিশ তৎপর ছিল। তারা মিছিল করতে পারেনি।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘শুনেছি, হাফিজ কমপ্লেক্সের ওদিকে ১০-১৫ জন মিছিলের চেষ্টা করেছে।’

শেয়ার করুন!