পিসিবির সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় বিসিবি



স্পোর্টস ডেস্ক :

বিশ্বব্যাপী দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনা। ইতোমধ্যে ১০০টিরও বেশি দেশে করোনা ভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে, তার মধ্যে পাকিস্তানও রয়েছে। ভাইরাসটির গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করে পিএসএলের বাকি ম্যাচগুলোতে মাঠে দর্শক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে পিসিবি। খেলোয়াড়দের হ্যান্ডশেক, সমর্থকদের অটোগ্রাফ দেয়া, ছবি তোলাতেও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

পিসিবির পক্ষ থেকে এরই মধ্যে ঘোষণা দেয়া হয়েছে, যারা আগাম টিকেট কিনেছেন তাদের টিকেট মূল্য ফেরত দেয়া হবে।

এছাড়া ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে তড়িঘড়ি করে পাকিস্তান ছাড়ছেন ইংলিশ ক্রিকেটাররা। এমন পরিস্থিতির কারণে বাংলাদেশের আসন্ন পাকিস্তান সফর শঙ্কায় পড়ে গেছে। মার্চের শেষের দিকে তৃতীয় দফার সফরে পাকিস্তান পৌঁছার কথা বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের। এরপর এপ্রিলে একটি করে ওয়ানডে ও টেস্ট খেলার কথা রয়েছে। কিন্তু পাকিস্তানে করোনা ভাইরাসের অবস্থা সন্তোষজনক না হলে এই সফর স্থগিতও হতে পারে।

অবশ্য পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খানের দাবি, সফর বাতিলের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। বরং দুই পক্ষের মধ্যে সিরিজ আয়োজন নিয়ে আলোচনা চলছে। আগামী ৩ দিনের মধ্যে একটা সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যাবে বলে শুক্রবার তিনি জানিয়েছেন।

ওয়াসিম খান বাংলাদেশের তৃতীয় দফা সফর নিয়ে বলেন, ‘শুক্রবার আমি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরীর সঙ্গে কথা বলেছি। আগে তিনি তাদের বোর্ডের সঙ্গে কথা বলবেন। ইনশাল্লাহ আগামী ৩ দিনের মধ্যে পরিস্থিতি পরিষ্কার হয়ে যাবে।’

বিসিবি সরাসরি সফর বাতিল করার ঘোষণা না দিলেও পরিস্থিতির নিবিড় পর্যবেক্ষণ করছে এবং গতকাল বিসিবির প্রধান নির্বাহীর কথায় ইঙ্গিত সফর আপাতত হবে না। তবে বিসিবি সিইওর কণ্ঠে পরিষ্কার আভাস, তারা এখনই নিজেরা যেচে ‘না’ বলতে চাচ্ছেন না।

যেহেতু স্বাগতিক পাকিস্তান, তাই বিসিবি চাচ্ছে ওই এক ওয়ানডে ও টেস্ট আপাতত স্থগিতের ঘোষণাটি পিসিবির কাছ থেকেই আসুক।

গতকাল ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগের টাইটেল স্পন্সর ঘোষণার অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের পাকিস্তান সফর নিয়ে প্রশ্নের জবাবে নিজামউদ্দীন বলেন, ‘পাকিস্তান আয়োজক দেশ। তাই সিদ্ধান্তটা তারাই নেবে।

আমরা দেখি পাকিস্তান কী সিদ্ধান্ত নেয়। আপনারা দেখেছেন, তাদের ঘরোয়া যে প্রতিযোগিতা (পিএসএল) হচ্ছে সেখান থেকে ৯-১০ জন বিদেশি খেলোয়াড় চলে গেছে। আমরা পাকিস্তানের সিদ্ধান্ত জানার অপেক্ষায় আছি। আমরা তো সফরকারী দল।

আমরা যে কোনো সময়ই সিদ্ধান্ত নিতে পারি। ট্রাভেল অ্যাডভাইজরি কিন্তু এখন প্রতিদিন নতুন করে তৈরি হচ্ছে। মুভমেন্টের জন্য করণীয় আসছে নতুন করে।

আমরা অবশ্যই এটা নিয়ে উদ্বিগ্ন এবং ক্লোজ মনিটরিংয়ে রাখছি। আমরা প্রত্যাশা করছি, পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড খুব শিগগিরিই তাদের সিদ্ধান্ত জানাবে।’

গোটা বিশে্বর ক্রীড়াঙ্গনেই করোনার প্রভাব পড়েছে। একের পর এক আয়োজন স্থগিত হচ্ছে। এমন কী দর্শকবিহীন মাঠেও খেলা আয়োজন নিয়ে ভরসা পাচ্ছেন না আয়োজকরা।

কারণ করোনা ভাইরাসকে মহামারি হিসেবে ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

এ অবস্থায় বাংলাদেশেরও পাকিস্তান সফর বাতিল এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।

শেয়ার করুন!