ডিমলায় অগ্নিকান্ডে ৩টি বসতঘর পুড়ে ছাই



নীলফামারী জেলা প্রতিনিধি :

নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ৩নং সদর ইউনিয়নের বাবুরহাট গ্রামের পুরান (পুরনো) থানা এলাকায় অগ্নিকান্ডে এক দিন মজুরের বাড়ির বসতভিটার তিনটি পরিবারের চারটি বসতঘর,ঘরে থাকা আসবাবপত্র,পোশাক,খাদ্য সামগ্রী,জীবিকা নির্বাহের বিভিন্ন উপকরণ সহ নগদ অর্থ পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। যার ক্ষতির পরিমান প্রায় ৫ লাখ টাকা বলে ধারনা করা হয়েছে।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, বুধবার (১ এপ্রিল) দুপুরের দিকে মৃত সতিষ চন্দ্র রায়ের ছেলে দিন মজুর হরিশ চন্দ্র রায় (৫০)’র বাড়ির রান্না ঘর থেকে আগুনের সুত্রপাত ঘটে। সে আগুনে ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে ডিমলা ফায়ার সার্ভিস দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে এলাকাবাসী সহযোগীতায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হন। কিন্তু তার আগেই নিমিষেই হরিশ চন্দ্র রায় সহ অক্ষয় চন্দ্র রায় (৪৫) ও অধির চন্দ্র রায় (৪০)এর বাড়ির চারটি বসত ঘর ও ঘরে থাকা মালা-মাল,নগদ অর্থ সহ সর্বস্ব পুড়ে ছাই হয়ে যায়।
জীবনের সব উপার্জনে করা বসত বাড়ি-ঘর সহ সর্বস্ব পুড়ে যাওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছেন ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার গুলো। এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ডিমলা সদর ইউনিয়ন পরিষদ আবুল কাশেম সরকার।

ডিমলা ফায়ার সার্ভিস ইনচার্জ আবু বকর সিদ্দীক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে বাড়ির চুলার উপর রাখা খড়ি থেকে আগুনের সুত্রপাত ঘটেতে পারে।আমরা এলাকাবাসীর সহযোগীতায় অল্প সময়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হওয়ায় আশ-পাশে অবস্থিত অন্যান্য বাড়ি-ঘর রক্ষা পায়।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেসবাহুর রহমান মানিক জানান, সদর ইউপি চেয়ারম্যান মাধ্যমে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে শুকনা খাবার ও কম্বল ত্রাণ সামগ্রী হিসেবে প্রদান করা হয়েছে। অপরদিকে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার গুলোর মাঝে সহায়তা হিসেবে চাল,ডাল, আলু, তেল ও সাবান দিয়ে সহযোগীতা করেছেন উপজেলা ছাত্রলীগের অর্থায়নে সংগঠনটির আহ্বায়ক আবু সায়েম সরকার ও জীবিকার বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে সহযোগীতা করেছেন ডিমলা মানিক ফ্যাশনের স্বত্তাধিকারী আমিনুর রহমান।

শেয়ার করুন!