পাইকগাছা থানার ওসির বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ



ছবি-সিএনবাংলাদেশ।
খুলনা প্রতিনিধি :

খুলনার পাইকগাছা থানার ওসি মোঃ এজাজ শফির বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতা, অনিয়ম, পক্ষপাতিত্ব, হয়রানীসহ নানা অভিযোগ হয়েছে। ডিআইজি খুলনা, পুলিশ সুপার খুলনা বরাবর অভিযোগ ও খুলনা প্রেসক্লাবে ওসির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন হয়েছে।

খুলনা পাইকগাছার হিতামপুর গ্রামের বিষ্ণু বিশ্বাস রবিবার দুপুরে খুলনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে ওসির বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও অভিযোগ উপাস্থাপন করেন।

লিখিত বক্তব্যে জানা গেছে, তার খরিদা রেকর্ডীয় সম্পত্তি ভোগদখল ও শান্তিপূর্ণ ভাবে বসবাস করে আসছে। প্রতিবেশী মাধুরী বিশ্বাসের বাড়ী থেকে যাতয়াতের পথ থাকার পরও তার বাড়ীর উঠানের উপর দিয়ে যাতয়াতের পথ দাবী করে দীর্ঘদিন বিরোধ করে আসছে। যাহার প্রেক্ষিতে একাধিক মামলাও হইয়াছে। মামলা নং- এমআর ১০৯/২০, জিডি নং- ৪৪৫, সিআর ১৪২/২১, জিডি নং- ১২০৫/২১। উক্ত পথের সূত্রে ধরে গত ০৯ মার্চ মাধুবী বিশ্বাস ও তাহার দলবল বিষ্ণুর বাড়িতে বে-আইনী ভাবে প্রবেশ করে তার স্ত্রী, কন্যা, বৌদি, ভাইজিকে মারপিট করিয়া জখম, শ্লীলতা হানী, টাকা, স্বর্ণালংঙ্কার চুরি ও বসতবাড়ী ভাংচুর করে। এ ঘটনায় বিষ্ণু মাধবী বিশ্বাসসহ ১০ জনকে আসামী করিয়া পাইকগাছা থানায় একটি মামলা করে, যার নং ১৫/২১। মামলা হওয়ার পর থানা পুলিশ আসামীদের আটক করেনি। বিষ্ণু মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাকে আসামী ধরতে বললে তদন্তকারী কর্মকর্তা বলে আসামী ধরা ওসি সাহেবের নিষেধ আছে। মাধবী জামিন নিয়ে পুলিশ দিয়ে জোর পুর্বক ভয়ভীতি দেখাইয়া গাড়িতে তুলিয়া থানায় নিয়া যায়। সে গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ঐ রাতে তার স্ত্রী নমিতা বিশ্বাস কাছ থেকে দুইটি কাগজে স্বার নিয়া থানা পুলিশ তাকে ছেড়ে দেয়। মাধুবী গংরা আমাকে নানা ভাবে ভয়বীতি ও খুনের হুমকি অব্যহত রেখেছে। পরবর্তীতে বিষ্ণু মাধবী বিশ্বাসদের বিরুদ্ধে আদালতে চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা মামলা করে, যার নং- দেঃ ৭৬/২১। মামলা খবর পেয়ে মাধুবী ও পুলিশ তার উপর আরো ক্ষিপ্ত ও বেপরোয়া হইয়া ওঠে। ২০ মার্চ বিষ্ণুর বাড়ীতে মিস্ত্রী দিয়ে কাজ করাকালে ওসির নির্দেশে থানার এএসআই শেখ পলাশ তার বাড়ীতে যেয়ে কাজ বন্ধ করে দেয় এবং অশ্লিল ভাষায় গালিগালাজ করে এবং বলে ওসি স্যারের সাথে দেখা কর নইলে খবর খারাপ হয়ে যাবে বলে হুমকি দেয়। সে প্রায় ২০ বছর আগে বাঘে আক্রমণ বেঁচে ফিরেছে। বাঘের আক্রমণের সেই ভয়ঙ্কর স্মৃতি তাকে তাড়া করে বেড়াই। এতে সে প্রায় সময় শারীরিক ও মানসিক ভাবে অসুস্থ্য ভাবে জীবন যাপন করছে। বিষ্ণু যাতে পুলিশের হয়ারীন ছাড়া শান্তিপূর্ণ ভাবে বসাবাস করতে পারে সে ব্যাপারে সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যম ও পুলিশের উর্দ্ধোতন কর্মকর্তার সু-দৃষ্টি কামনা করেছে।

শেয়ার করুন!