করোনা : মসজিদে মসজিদে ঈদের জামাতে অনুষ্টিত



ছবি-সিএনবাংলাদেশ।
শ্রীমঙ্গল (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি :

করোনা মহামারীর চলমান পরিস্থিতিতে গত দুই ঈদের জমাত মসজিদে অনুষ্টিত হয়। এবারো করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় সরকারি নির্দেশনা মেনে মসজিদে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লীরা। শ্রীমঙ্গলের প্রতিটি মসজিদে ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্টিত হয়েছে। ভোর থেকেই মসজিদগুলোতে নানান বয়সী মুসল্লীরা মসজিদে জামাত আদায় করতে হাজির হতে থাকেন। আবহাওয়া অধিদপ্তরের ধারণা অনুযায়ী ঈদের দিন দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু ঈদের দিন শুক্রবার ভোর থেকে সকাল সাড়ে আটটা পর্যন্ত শ্রীমঙ্গলের আকাশ ছিলো ঝলমলে রুদ্রচ্ছল। দ্বিতীয় জামাতের সময় পরে হঠাৎ করে বৃষ্টি নামে। প্রথম জমাত সস্থিতে আদায় করলেও মসজিদগুলোতে দ্বিতীয় জমাতে অংশ নেওয়া মানুষ কিছুটা বিপাকে পড়েন। তবে বৃষ্টি বেশিক্ষণ দীর্ঘায়িত হয়নি। ঈদের জমাত সকাল সাড়ে ৭টায় ও দ্বিতীয় জমাত সোয়া আটটায় শ্রীমঙ্গল কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে অনুষ্টিত হয়। প্রথম জামাতে নামাজ আদায় করেন জাতীয় সংসদের সাবেক চিফ হুইপ ড. মো. আব্দুস শহীদ এমপি, নামাজের আগে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় ড. আব্দুস শহীদ এমপি, সরকারের স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদ উদযাপণ করতে সকলের প্রতি অহŸান জানন। এসময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানান, জামাতে অংশ নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার নজরুল ইসলাম বলেন, চলমান করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সকলকে সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিকল্প নাই। আমরা সবাই যদি স্বাস্থবিধি মেনে চলি তবেই সম্ভব এই মহামারি রোখে দেওয়া। তিনি স্বাস্থবিধি মেনে জমাতে অংশ নেওয়ায় মুসল্লীদের উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানন।
এসময় সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. নেছার উদ্দিন, সহকারী পুলিশ সুপার মো. আশরাফুজ্জামান, শ্রীমঙ্গল থানা অফিসার ইনচার্জ মো. আব্দুছ ছালেক, মৌলভীবাজার জেলা আ’ লীগের সাংগটনিক সম্পাদক সৈয়দ মনসুরুল হক, শ্রীমঙ্গল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ইয়াহিয়া খান, শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাব সিনিয়র সহ-সভাপতি কাউছার ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক মো, ইমাম হোসেন সোহেল। জামাতে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, ব্যবসায়ী সহ প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তা ও শহরের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ঈদের জামাত আদায় করেন। মুসল্লিরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাস্ক পরে এবং জায়নামাজ সঙ্গে করে নিয়ে এসে পবিত্র ঈদুল ফিতরের ঈদের জামাত আদায় করেন। করোনা পরিস্থিতিতে ধর্ম মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদে ঈদের জামাত আদায়ের ফলে মসজিদগুলোতে মুসল্লিদের জায়গা সংকুলান না হওয়ায় ২ থেকে তিনটি করে জামাতের মাধ্যমে ঈদের জামাত আদায় করেন মুসল্লিরা। জামাত শেষে জমে মসদিদের খতিব হাফেজ হযরত মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস নেজামী মোনাজাত পরিচালনা করেন। চলমান করোনা মহামারি থেকে মুক্তির প্রত্যাশায় দেশ ও জাতির কল্যানে মহান আল্লাহর দরবারে বিশেষ দোয়া অনুষ্টিত হয়।

শেয়ার করুন!