দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যাওয়ার্ডে নরকিয়া ও ইসমাইলের জয়-জয়কার



ক্রীড়া ডেস্ক :

সম্ভাবনাময় ক্রিকেটার থেকে উন্নতির পথে দ্রুত ছুটে সেরা হওয়ার দারুণ নজির দেখালেন আনরিক নরকিয়া। দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ষষেরা নবীন ক্রিকেটার হওয়ার পরের বছরই এই ফাস্ট বোলার জিতে নিলেন বর্ষসেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার।

শুধু এটিই নয়, দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যাওয়ার্ডে আরও তিন ক্যাটেগরিতে সেরার স্বীকৃতি পান নরকিয়া। মেয়েদের ক্রিকেটে পেসার শাবনিম ইসমাইল বর্ষসেরা ক্রিকেটারসহ জেতেন তিনটি পুরস্কার।

মহামারীকালে আরও অনেক কিছুর মতো এবারের ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকার এই অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানও ভার্চুয়ালি আয়োজন করা হয় সোমবার।

ছেলেদের বর্ষসেরা ক্রিকেটারের পাশাপাশি নরকিয়া জেতেন বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটার, সমর্থকদের ভোটে বর্ষসেরা ক্রিকেটার ও ক্রিকেটারদের চোখে বর্ষসেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার। শেষ ক্যাটেগরিতে অবশ্য তিনি যৌথ বিজয়ী, যেখানে তার সঙ্গী ব্যাটসম্যান এইডেন মারক্রাম।

২০১৯ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আবির্ভাব নরকিয়ার। কোভিডের প্রকোপে এখনও পর্যন্ত মাত্র ১০ টেস্ট, ৯ ওয়ানডে ও ৫ টি-টোয়েন্টি খেলতে পেরেছেন তিনি। গতি ও আগ্রাসন দিয়ে আলোচনার ঝড় তুলেছেন তাতেই। ১০ টেস্টে তার শিকার ৩৯ উইকেট। গত বছর তিনি জিতেছিলেন বর্ষসেরা নবীনের পুরস্কার।

ছেলেদের বর্ষসেরা ওয়ানডে ক্রিকেটারের স্বীকৃতি পেয়েছেন রাসি ফন ডার ডুসেন, বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটার তাবরাইজ শামসি। আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়েও এখন বোলারদের শীর্ষে চায়নাম্যান বোলার শামসি। বর্ষসেরা নতুন ক্রিকেটার এবার হয়েছেন বাঁহাতি স্পিনিং অলরাউন্ডার জর্জ লিন্ডা।

ঘরোয়া ক্রিকেটের ‘মোস্ট ভ্যালুয়েবল প্লেয়ার’ হয়েছেন বাঁহাতি স্পিনার কেশভ মহারাজ। ঘরোয়া চারদিনের ক্রিকেটের সেরা মনোনীত হয়েছেন মারক্রাম, ঘরোয়া ওয়ানডেতে অলরাউন্ডার রবি ফ্রাইলিঙ্ক ও ঘরোয়া টি-টোয়েন্টিতে পেসার সিসান্ডা মাগালা।

মেয়েদের ক্রিকেটে দ্বিতীয়বারের মতো বর্ষসেরা হলেন ইসমাইল। ৩২ বছর বয়সী এই পেসারের আগে একাধিকবার সেরা হয়েছেন ডানে ফন নিকার্ক (৩ বার) ও মারিজান ক্যাপ (২ বার)।

ইসমাইল পাশাপাশি জিতেছেন বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটার ও ক্রিকেটারদের চোখে সেরা ক্রিকেটারের স্বীকৃতি। ওয়ানডের সেরা ক্রিকেটার ব্যাটার লিজেল লি।

শেয়ার করুন!