করোনায় আরও ৪৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৪৪৭



ফাইল ছবি।
সিএনবাংলাদেশ অনলাইন :

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত করোনা ভাইরাস রোগীর সংখ্যা আগের দিনের চেয়ে কমলেও মৃত্যু বেড়েছে। ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৪৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগের দিন ৩৪ জনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর। ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৪৩ জনকে নিয়ে দেশে সরকারি হিসেবে এখন পর্যন্ত মারা গেলেন ১২ হাজার ৮০১ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হারও বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৪৪৭ জন। যা নমুনা পরীক্ষার তুলনায় ১১ দশমিক শূন্য তিন শতাংশ। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ছিল ১০ দশমিক ৪০ শতাংশ।

নতুন করে শনাক্ত হওয়া এক হাজার ৪৪৭ জনকে নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত সরকারি হিসেবে শনাক্ত হলেন আট লাখ ৯ হাজার ৩১৪ জন। একই সময়ে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৬৬৭ জন, দেশে এখন পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হলেন সাত লাখ ৪৯ হাজার ৪২৫ জন।

শনিবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, দেশে এখন পর্যন্ত রোগী শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৪১ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার হার ৯২ দশমিক ৬০ শতাংশ এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৫৮ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ১২ হাজার ৭৬৬টি এবং নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৩ হাজার ১১৫টি। দেশে এখন পর্যন্ত করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৬০ লাখ ৩৪ হাজার ২৬০টি। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা করা হয়েছে ৪৪ লাখ দুই হাজার ৪০৬টি এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা করা হয়েছে ১৬ লাখ ৩১ হাজার ৮৫৪টি।

দেশে বর্তমানে ৫০৯টি পরীক্ষাগারে করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে জানিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, এর মধ্যে আরটি-পিসিআরের মাধ্যমে ১৩১টি পরীক্ষাগারে, জিন এক্সপার্ট মেশিনের মাধ্যমে ৪৪টি পরীক্ষাগারে এবং র্যাপিড অ্যান্টিজেনের মাধ্যমে ৩৩৪টি পরীক্ষাগারে পরীক্ষা করা হচ্ছে।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৪৩ জনের মধ্যে পুরুষ ৩০ জন, আর নারী ১৩ জন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত পুরুষ মারা গেলেন ৯ হাজার ২৩১ জন এবং নারী তিন হাজার ৫৭০ জন।

বয়স বিবেচনায় ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব রয়েছেন ২১ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১৩ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে দুই জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে পাঁচ জন, ২১ থকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন এবং শূন্য থেকে ১০ বছরের মধ্যে একজন রয়েছেন।

বিভাগভিত্তিক বিশ্লেষণে তাদের মধ্যে ঢাকা ও রাজশাহী বিভাগের আছেন ১২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের আট জন, খুলনা বিভাগের পাঁচ জন, সিলেট বিভাগের একজন, রংপুর বিভাগের তিন জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের রয়েছেন দুই জন।

তাদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে ৩৭ জন, বেসরকারি হাসপাতালে পাঁচ জন এবং বাড়িতে মারা গেছেন একজন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হওয়া এক হাজার ৬৬৭ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের আছেন ৬৭৬ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ৭৩৯ জন, রংপুর বিভাগের ২১ জন, খুলনা বিভাগের ৬০ জন, বরিশাল বিভাগের ৩৭ জন, রাজশাহী বিভাগের ৬৫ জন, সিলেট বিভাগের ৬১ জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের আছেন একজন।

শেয়ার করুন!