জার্মানির আক্রমণাত্মক ফুটবলে কাল হলো পর্তুগালের



ছবি-সংগৃহীত।
ক্রীড়া ডেস্ক :

জার্মানির আক্রমণাত্মক ফুটবলে কাল হলো পর্তুগালের। লিড নিয়েও দুটি আত্মঘাতী গোলে জার্মানির বিপক্ষে বিধ্বস্ত হলো ফার্নান্দো সান্তোসের শিষ্যরা। মিউনিখের আলিয়াঞ্জ অ্যারেনায় শনিবার ‘এফ’ গ্রুপের ম্যাচে ৪-২ গোলে শিরোপাধারীদের হারিয়ে দিয়েছে তিনবারের চ্যাম্পিয়নরা। প্রথম ম্যাচে ফ্রান্সের কাছে হেরে ইউরো শুরু করেছিল জার্মানরা, দ্বিতীয় ম্যাচেই চেনা ছন্দে ফিরলো গত আসরের সেমিফাইনালিস্টরা।

শুরু থেকেই আক্রমণের ঝড় তুলে জার্মানি। ৫ মিনিটের মাথায় রবিন গোসেনসের গোলে এগিয়ে যেতে পারতো জার্মানরা। কিন্তু আফসাইডের আবেদন করে পর্তুগাল। গোলটি বাতিল করেন রেফারি। এরপর ম্যাচের ১৫তম মিনিটে কাউন্টার অ্যাটাকে উঠে অসাধারণ গোল করেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। ডিয়োগো জোটা নিখুঁত পাস বাড়ান রোনালদোকে। বলটা পেয়ে জালে জড়াতে কোনো ভুল করেননি সিআর সেভেন।

আগের ম্যাচে দুটি রেকর্ড গড়া রোনালদো এবার গড়লেন আরেক কীর্তি। বড় টুর্নামেন্টে (বিশ্বকাপ ও ইউরো মিলে) ইউরোপিয়ান খেলোয়াড়দের সর্বোচ্চ গোলের তালিকায় ১৯ গোল নিয়ে বসলেন শীর্ষে, জার্মানির সাবেক স্ট্রাইকার মিরোস্লাভ ক্লোসার পাশে।

এতে পর্তুগালের জার্সিতে তার ১০৭টি গোল হয়ে গেল। আলি দাইয়ের রেকর্ডের আরও কাছে পৌঁছে গেলেন রোনালদো। আলি দাই জাতীয় দলের জার্সিতে মোট ১০৯টি গোল করেছেন। ইরানের স্ট্রাইকারকে স্পর্শ করতে রোনালদোর দরকার আরও দু’গোল।

ম্যাচের ৩৫তম মিনিটে আত্মঘাতী গোলে সমতায় ফেরে জার্মানি। রবিন দায়েসের অসাধারণ একটি পাস ধরে নিখুঁত শটে বল জালে জড়ান কাই হ্যাভার্জ। এর ঠিক মিনিট চারেক পরেই রাফায়েলের আত্মঘাতী গোল। ১৫ মিনিটে এক গোলে পিছিয়ে পড়া জার্মানি এগিয়ে যায় ২-১ গোলে।

বিরতির পরে ব্যবধান আরো বাড়ায় জার্মানি। ৫১ মিনিটে কাই হ্যাভার্টজ ৩-১ করেন। ৬০ মিনিটে রবিন গোজেনস ফাঁকায় হেড করে ৪-১ করেন। জার্মানরা ম্যাচের রাশ নিজেদের হাতে ততক্ষণে নিয়ে ফেলেছে। তবুও মরিয়া হয়ে লড়াই চালিয়ে যান রোনালদো। তার পাস থেকেই দিয়েগো ৪-২ করেন পর্তুগালের হয়ে। ম্যাচে মোট ৬ গোল হয়। এবারের ইউরোয় একটি ম্যাচে এত গোল এখনও পর্যন্ত হয়নি।

শেয়ার করুন!