কাকাইলছে ভুল চিকিৎসা, প্রসুতি নারীসহ দুই নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ



প্রতীকী ছবি।
আজমিরীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি :

আজমিরীগঞ্জ উপজেলার কাকাইলছেও ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের প্যারামেটিক ও তার সহকারীর বিরুদ্ধে ভুল চিকিৎসায় এক প্রসুতি নারীসহ দুই নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনা নিয়ে ওই এলাকায় রোগীদের মাঝে আতংক বিরাজ করছে। এছাড়াও তাদের বিরুদ্ধে অর্থ নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ভাটি অঞ্চলের একমাত্র চিকিৎসাকেন্দ্র কাকাইলছেওয়ে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য পরিবার কল্যান কেন্দ্র। সেখানে আজমিরীগঞ্জ ছাড়াও মিঠামইন, ইটনাসহ বিভিন্ন উপজেলা থেকে রোগীরা সেবা নিতে আসেন। কিন্তু ওই কেন্দ্রের প্যারামেটিক ইশরাত জাহান রুনা ও তার সহকারী শাহানা আক্তার রোগী এলেই নানা অজুহাতে টাকা দাবি করেন। অন্যথায় তাদের সাথে অশোভন আচরণ করেন। গত ১ মাস আগে আজমিরীগঞ্জ উপজেলার কামালপুরের তাসলিমা আক্তার (৩০) নামের এক প্রসুতি মহিলা তাদের কাছে আসেন। কিছু টাকা নিয়ে তাকে চিকিৎসাসহ ওষুধপত্র দেন। ওষুধ সেবনের পর তার অবস্থার অবনতি হলে গত শুক্রবার তিনি পুনরায় তাদের কাছে যান। এ সময় তারা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে বলে বাচ্চার অবস্থা ভালো নয়, এখনই ডেলিভারী করাতে হবে। এ জন্য টাকা দিতে হবে। ভয়ে তাসলিমার পরিবার তাদের কথায় রাজি হয় এবং নরমাল ডেলিভারীর চেষ্টা চালায় রুনা ও শাহানা। একপর্যায়ে তাসলিমার অবস্থা আরও অবনতি হলে তাকে হবিগঞ্জে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। পরে তাসলিমাকে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পর তাসলিমা মারা যায়।

অপরদিকে ইটনা থানার কাকাইলছেওয়ের পার্শ্ববর্তী বড়বাড়ি গ্রামের আমির হোসেনের স্ত্রী সাথী আক্তার (২৫) সম্প্রতি প্রসুতি ব্যথা নিয়ে রুনা ও শাহানার কাছে আসেন। পরে টাকা রেখে তারা কিছু ওষুধ ও চিকিৎসা দেন। কিছুদিন পর পুনরায় তাদের কাছে গেলে ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে নরমাল ডেলিভারীর চেষ্টা করে। কিন্তু অবস্থার অবনতি হলে তাকে হবিগঞ্জে সিজার করানোর জন্য পাঠানো হয়। একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে সিজার করানো হলে মৃত নবজাতক প্রসব করে অল্পের জন্য মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পান সাথী। তাদের স্বজনদের অভিযোগ, রুনা ও শাহানার অপচিকিৎসায় নবজাতকসহ প্রসুতি মহিলা তাসলিমার মৃত্যু হয়েছে।

এ বিষয়ে ইশরাত জাহান রুনা জানান, তারা যতটুকু পারেন রোগীদের সেবা দেয়ার চেষ্টা করেন। টাকা নেয়ার বিষয়টি ঠিক নয়। তবে কেউ খুশি হয়ে কিছু দিলে তারা নেন।

শেয়ার করুন!