মালদ্বীপের কাছে ২-০ গোলে পরাজয় বাংলাদেশের



ক্রীড়া ডেস্ক/

শ্রীলংকার বিপক্ষে জয় দিয়ে সাফ শুরুর ধারাবাহিকতা ধরে রেখে ভারতের সঙ্গে ড্র করে বাংলাদেশ। সেই আত্মবিশ্বাস নিয়ে স্বাগতিক মালদ্বীপের বিপক্ষে মাঠে নামে জামাল ভুঁইয়ারা। কিন্তু মালদ্বীপের আক্রমণে অসহায় আত্নসমর্পণ করে জামাল-তপুরা। হামজা ও আলী আশফাকের গোলে ২-০ ব্যবধানে বাংলাদেশকে পরাজয়ের স্বাদ দেয় মালদ্বীপ।

প্রথম থেকেই আক্রমণাত্নক খেলতে থাকে স্বাগতিক মালদ্বীপ। জামাল ভূঁইয়ারা তেমন লড়াই করতে পারেনি। তবে ডিফেন্ডাররা মালদ্বীপের বেশকিছু আক্রমণ প্রতিহত করেছেন। ম্যাচের ২১ মিনিটে প্রথম কর্নার পায় বাংলাদেশ। জামালের সে কর্নারে মাথা ছোয়াতে পারেননি তপুরা। ২৭ মিনিটে ফাউল করে বিপদ ডেকে আনেন ইয়াছিন। বক্সের বাইরে আলী ফাসিরকে ফেলে দেয়ায় হলুদ কার্ড দেখেন এই ডিফেন্ডার।
প্রথমার্ধের শেষ মূহুর্তে দুটি ফ্রি-কিক আদায় করে মালদ্বীপ। যার মধ্যে আলী আশফাকের ফ্রি-কিকে জিকোর দুর্দান্ত সেভে বেঁচে যায় বাংলাদেশ। তাই প্রথমার্ধ শেষে গোলের দেখা পায়নি বাংলাদেশ। মালের রাশমি ধান্দু স্টেডিয়ামে গোল শূন্য ড্রতে বিরতিতে যায় দুই দল।

দ্বিতীয়ার্ধে নেমেই বাংলাদেশকে প্রেশার দিচ্ছিলো মালদ্বীপ। বিরতির পর ১০ মিনিট না পেরোতেই গোল হজম করলো অস্কার ব্রুজোনের শিষ্যরা। ম্যাচের ৫৫ মিনিটে মালদ্বীপের নাম্বার টেন হামজা মোহাম্মদের বাইসাইকেল কিকে ১-০ গোলে পিছিয়ে যায় তপু বর্মনরা।

ম্যাচের ৭৩ মিনিটে বাংলাদেশের ফাউলে পেনাল্টি পায় মালদ্বীপ। স্পটকিক থেকে গোল করতে ভুল করেননি দ্বীপরাষ্ট্রের তারকা ফুটবলার আলী আশফাক। জিকোকে বোকা বানিয়ে মালদ্বীপের ব্যবধান ২-০ করেন ‘দক্ষিণ এশিয়ার মেসি’। বাকিটা সময়ে চেষ্টা করেও ব্যবধান কমাতে পারেননি জামাল ভূঁইয়ারা।

এই ম্যাচ জিতে পয়েন্ট টেবিলের ২ নম্বরে উঠে এসেছে মালদ্বীপ আর দুই নম্বরে থাকা বাংলাদেশ নেমে গেছে ৩ নম্বরে। টানা দুই জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে নেপাল।

লাল কার্ডের কারণে এই ম্যাচে ছিলেন না ডিফেন্ডার বিশ্বনাথ ঘোষ। দুই হলুদ কার্ডে মালদ্বীপ ম্যাচে খেলেননি রাকিবও। রাকিবের পরিবর্তে মিডফিল্ডার সোহেল রানা ও বিশ্বনাথ ঘোষের জায়গায় রহমত মিয়াকে একাদশে জায়গা দিয়েছেন কোচ অস্কার ব্রুজোন। প্রথম ম্যাচে ছিলেন না সোহেল। দ্বিতীয় ম্যাচে নেমেছেন বদলি হিসেবে। আজ শুরু থেকেই ছিলেন সোহেল। এই ম্যাচেও বাংলাদেশ খেলেছে ৪-১-৪-১ ফরমেশনে।

শেয়ার করুন!