কমলগঞ্জে বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ে জনজীবন অতিষ্ঠ 



প্রতীকী ছবি।
আকাশ আহমেদ/কমলগঞ্জ/প্রতিনিধি:

আশ্বিন মাস প্রায় শেষ যেখানে শীত পড়ার কথা সেখানে গরমে পুড়ছে মানুষ। এর মাঝে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে পল্লী বিদ্যুৎ এর লোডশেডিং। তীব্র গরম ও লোডশেডিংয়ে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মানুষ কষ্টে জীবন-যাপন করছেন। প্রতিদিন চার থেকে পাঁচ ঘন্টা বিদ্যুৎ থাকছে না। এলাকাভেদে সকাল, দুপুর, বিকেল, সন্ধ্যা, রাত ১টা ও ভোর রাতে বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার ঘন্টা দুয়েক পর আসে। এভাবে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় চলছে লোডশেডিং। অনেক এলাকায় ভোর বেলায় বিদ্যুৎ থাকে না। সন্ধ্যায় বিদ্যুৎ এলেও কিছুক্ষণ পর আবার চলে যাওয়ায় অতিষ্ঠ বিভিন্ন বাজারের ব্যবসায়ী ও স্কুল কলেজের ছাত্র ছাত্রীদের অভিভাবক। এছাড়াও ঘন ঘন লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ বিভিন্ন এলাকার মানুষ।

পতনঊষার ইউনিয়নের শাহিদ আলী বলেন, বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ের ফলে আমরা অনেক কষ্টে জীবন জাপান করছি। সারাদিন কাজ করার পর বাড়িতে গেলে বিদ্যুৎ আসা যাওয়া করে। প্রতিদিন পাঁচ থেকে ছয় ঘন্টা বিদ্যুৎ থাকেনা।

নৈনারপার বাজারের সমছু মিয়া বলেন, বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ের ফলে আমাদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। আমার মতো ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী যারা আছেন সন্ধ্যার পরে বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার সাথে সাথে দুকান বন্ধ করে বাড়িতে চলে আসতে হয়। কারণ অতিরিক্ত গরমে বাজারে মানুষ আসেনা।

উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষার্থীর অবিভাবকদের সাথে কথা বললে তারা জানান, প্রতিদিন সন্ধ্যার পর বিদ্যুৎ না থাকায় আমাদের বাচ্চাদের লেখা পড়ায় মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। এমনিতেই করোনার কারণে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখায় মনযোগ নেই তার উপর পল্লী বিদ্যুৎ এর ভেলকিবাজি।

এ ব্যাপারে মৌলভীবাজার পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির কমলগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম গোলাম ফারুক মীর বলেন, সিলেট বিভাগীয় অফিসে একটি পাওয়ার স্টেশন নষ্ট হওয়ার কারণে এই সমস্যা হচ্ছে। দুই একদিনের মধ্যে সমস্যা সমাধান হবে।

শেয়ার করুন!