দেশে গত ৭ দিনে করোনা সংক্রমণ দ্বিগুণ: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর



ফাইল ছবি।
সিএনবাংলাদেশ অনলাইন/

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত ৭ দিনে বাংলাদেশে করোনার সংক্রমণ প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। গত ৫ থেকে ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত আমরা প্রায় দ্বিগুণ শতাংশ রোগী পেয়েছি। ৫ জানুয়ারি ছিল ৪ দশমিক ২০ শতাংশ, ১১ জানুয়ারি এসে ৮ দশমিক ৯৭ শতাংশ সংক্রমণ হয়েছে। গত ৭ দিনে প্রায় দ্বিগুণ হয়ে গেছে। ১ জানুয়ারি পর্যন্ত সংক্রমণ আমাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল। তারপর থেকে এটা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এটা শুধুমাত্র একই ধারায় বৃদ্ধি হচ্ছে তা না, প্রোগ্রেসিভলি বৃদ্ধি পাচ্ছে। যেটা আমাদের জন্য অ্যালার্মিং।

বুধবার দুপুর ২টায় কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আয়োজিত ভার্চুয়াল বুলেটিনে সংস্থাটির মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. মো. রোবেদ আমিন এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, গত ১ সপ্তাহে বাংলাদেশে ১০ শতাংশের বেশি পরীক্ষা বেড়েছে। ৭ দিনে দেড় লাখ টেস্ট হয়েছে। শনাক্ত হয়েছে ১০ হাজার ৪৭৪ জন। এর আগের সপ্তাহের তুলনায় ৭ দিনে ৬ হাজার রোগী বেশি শনাক্ত। মোট শনাক্ত হয়েছে ১৫ লাখ ৯৮ হাজার ৩৮৯ জন। গত ৭ দিনে ২০ জনের মৃত্যু দেখেছি করোনায়। যদিও আগের সপ্তাহের তুলনায় এ সপ্তাহে মৃত্যু ২০ শতাংশ কম।

রোবেদ আমিন বলেন, পুরো ডিসেম্বরে ৪ হাজার ৫৮৮ রোগী আমরা শনাক্ত করতে পেরেছি, সেখানে জানুয়ারির মাত্র ১১ দিনে ১২ হাজার ৮৫০টি রোগী ইতোমধ্যে শনাক্ত করা হয়েছে। অনেকেই টেস্ট করছেন না। সবাই যদি টেস্ট করতেন এবং সংক্রমিত যেসব সিম্পটোমিক রোগী আছেন তাদের সবাইকে টেস্ট করলে হয়তো সংখ্যাটা আরও অনেক বৃদ্ধি পেত।

তিনি বলেন, ঢাকা এবং রাঙ্গামাটি বর্তমানে কোভিডের অত্যন্ত উচ্চ ঝুঁকিতে আছে। এ ছাড়া, ৫৪টি এলাকাকে কম ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। কম থেকে মধ্যম ঝুঁকিতে আছে সীমান্তবর্তী বেশ কয়েকটা জেলা। যেমন যশোর, রাজশাহী, দিনাজপুর, লালমনিরহাট, নাটোর ও রংপুর। এসব জেলাগুলোকে সাবধানতার সঙ্গে তাদের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে বলা হয়েছে।

এই সময় তিনি সারা বিশ্বে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি অত্যন্ত নাজুক অবস্থায় আছে জানিয়ে বলেন, ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত বিশ্ব পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বিশ্বে প্রায় ৩০ কোটি ৮৪ লাখ ৫৮ হাজার ৫০৯ জন লোক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। সব মহাদেশে দেখা যাচ্ছে বর্তমান সময়ে সব চেয়ে বেশি শনাক্ত হচ্ছে। ওমিক্রনের পাশাপাশি ডেলটা ধরনও কিন্তু অবস্থান করছে। সংক্রমণ হঠাৎ করে মাত্রাতিরিক্ত হয়ে গেলে ধরে নিতে হবে নতুন যে ভ্যারিয়েন্ট তারই সংক্রমণ বেশি হচ্ছে।

শেয়ার করুন!