সৈন্য সমাবেশের নির্দেশ দিলেন পুতিন



ফাইল ছবি।
আন্তর্জাতিক ডেস্ক/

দেশের পূর্বাঞ্চলে ইউক্রেনের বাহিনীর সাম্প্রতিক সাফল্যের জেরে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন রুশ সামরিক অভিযান আরো জোরদার করতে রিজার্ভ সেনাদের বাহিনীতে যোগ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

গতকাল বুধবার টেলিভিশনে প্রচারিত জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে সেনা বাড়ানোর নির্দেশ দেন পুতিন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এই প্রথমবার রিজার্ভ সেনাদের ডেকেছেন কোনো রুশ প্রেসিডেন্ট।

এদিকে ইউক্রেনের রুশপন্থীদের দখলে থাকা লুহানস্ক, দোনেৎস্ক, খেরসন ও জাপোরিঝিয়ার মস্কোর অনুগত নেতারা রাশিয়ায় যোগদানের লক্ষ্যে জরুরিভাবে গণভোট আয়োজনের পরিকল্পনা ঘোষণা করেছেন।

প্রেসিডেন্ট পুতিনের নির্দেশনার ফলে যারা কোনো একসময় রুশ সেনাবাহিনীতে কাজ করেছেন বা প্রশিক্ষণ নিয়েছেন সেসব ‘রিজার্ভ’ সেনাদের এখন যুদ্ধক্ষেত্রে পাঠানো হবে।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু জানিয়েছেন, পুতিনের নির্দেশনার পর তিন লাখ ‘রিজার্ভ’ সদস্যকে তলব করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় গতকাল বলেছে, ইউক্রেনে পূর্ণ মাত্রায় আগ্রাসন শুরু হওয়ার পর থেকে রুশ বাহিনীর পাঁচ হাজার ৯৩৭ সেনা ও কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। এর আগে গত মার্চ মাসে রাশিয়া এক হাজার ৩৫১ জন নিহতের একটি হিসাব দিয়েছিল।

বিবিসি পরিবার ও সেনা ইউনিটের ভিত্তিতে অনুসন্ধান করে অন্তত ছয় হাজার ৬৪৬ জন নিহতের একটি তালিকা পেয়েছে। গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানটি বলছে, এ সংখ্যা চূড়ান্ত না-ও হতে পারে এবং তা দ্বিগুণ কিংবা আরো বেশি হতে পারে।

জাতির উদ্দেশে ভাষণে পুতিন বলেন, রাশিয়ার অনেক যুদ্ধাস্ত্র প্রস্তুত আছে। অস্ত্র উৎপাদন বৃদ্ধি করার জন্যও তিনি বাড়তি তহবিল বরাদ্দের নির্দেশ দিয়েছেন।

পশ্চিমা দেশগুলোর প্রতি হুমকি দিয়ে পুতিন বলেন, ‘আমাদের দেশের আঞ্চলিক অখণ্ডতা যদি হুমকির মধ্যে পড়ে, রাশিয়া এবং এর জনগণকে রক্ষা করার জন্য আমরা সব রকমের ব্যবস্থা নেব। এটা কোনো ফাঁকা বুলি নয়। ’

‘যারা পারমাণবিক অস্ত্র নিয়ে আমাদের ব্ল্যাকমেইল করতে চায়, তাদের জানা উচিত, পাল্টা বাতাস তাদের দিকেও যেতে পারে। ’

রুশ প্রেসিডেন্ট অভিযোগ করেন, পশ্চিমা দেশগুলো প্রমাণ করেছে, তারা চায় না যে রাশিয়া আর ইউক্রেনের মধ্যে শান্তি থাকুক।

পুতিনের ঘোষণার পরেই খারকিভে আবারও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করেছে মস্কো। রুশ সীমান্ত থেকে মাত্র ৪০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ইউক্রেনের উত্তর-পূর্বের এই অঞ্চলে যুদ্ধের প্রথম দিনই অভিযান চালায় রাশিয়া। সম্প্রতি খারকিভ থেকে রুশ সেনাদের পিছু হটাতে সক্ষম হয়েছে ইউক্রেনীয় বাহিনী।

পুতিনের বুধবারের ভাষণের পরপরই রাশিয়া থেকে ছেড়ে যাওয়া ফ্লাইটের টিকিটের চাহিদা কয়েক গুণ বেড়েছে। বিভিন্ন বিমান পরিবহন সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, রাশিয়া থেকে অন্যান্য দেশে যাওয়ার আগামী এক সপ্তাহের বিমানের টিকিট এখনই শেষ। গুগল জানিয়েছে, রাশিয়ায় ‘বিমান’ ও ‘টিকিট’ খোঁজার প্রবণতা আগের চেয়ে দ্বিগুণ হয়েছে।

অধিকৃত অঞ্চলে গণভোট

ইউক্রেনের রুশপন্থীদের দখলে থাকা লুহানস্ক, দোনেৎস্ক, খেরসন ও জাপোরিঝিয়ার মস্কোর অনুগত নেতারা গণভোটের ঘোষণা করেছেন। এতে করে এই অঞ্চলগুলোকে রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত করার পথ প্রশস্ত হবে। রুশপন্থীরা বলেছে, গণভোট হবে আগামী শুক্রবার থেকে পরবর্তী পাঁচ দিন ধরে।

রুশ অধিকৃত অঞ্চলে গণভোট প্রসঙ্গে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে পুতিন বলেন, ইউক্রেনে যারা নিজেদের ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করতে চান তাদের সমর্থন দেবে রাশিয়া।

পশ্চিমা দেশগুলোর জন্য চ্যালেঞ্জ হিসেবে আবির্ভূত হওয়া গণভোটের পরিকল্পনা ইউক্রেন যুদ্ধের তীব্রতা অনেক বাড়িয়ে দিতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি ও ফ্রান্স জানিয়েছে, তারা এ রকম ন্যক্কারজনক গণভোটের ফলাফল কখনোই মেনে নেবে না।

সূত্র : বিবিসি, এএফপি ও রয়টার্স।

শেয়ার করুন!