রাশিয়ার কর্মকাণ্ডে নজর রাখতে বিশ্বনেতাদের প্রতি আহ্বান বাইডেনের



ছবি-সংগৃহীত।
অনলাইন ডেস্ক/

রাশিয়ার ভয়ানক কর্মকাণ্ডগুলো নজরে রাখার জন্য বিশ্বনেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

তিনি জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেওয়া এক ভাষণে বলেছেন, ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসন জাতিসংঘের সনদের মূল নীতির নির্লজ্জ লঙ্ঘন। ওই যুদ্ধকে নৃশংস এবং অপ্রয়োজনীয় বলেও বর্ণনা করেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন।

বুধবার (নিউ ইয়র্ক স্থানীয় সময়) জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেওয়া ভাষণে এই আহ্বান জানান বাইডেন। তিনি বলেন, পুতিন বুধবার ইউরোপের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য পরমাণু হুমকি দিয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন খাদ্য অনিরাপত্তা যাতে না বাড়ে সেজন্য রাশিয়াকে ইউক্রেন যুদ্ধ থামানোর আহ্বান জানান। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, একমাত্র মস্কোর সরকার ছাড়া কেউই সংঘাত চায় না। বাইডেন জাতিসংঘের স্থায়ী ও অস্থায়ী সদস্য বাড়ানোর বিষয়ে সমর্থন জানান।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন ভাষণে বলেন, যুক্তরাষ্ট্র চীন কিংবা অন্য দেশের সঙ্গে সংঘাত কিংবা স্নায়ুযুদ্ধ চায় না। তিনি ‘এক চীন নীতি’তে যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গীকারের কথা পুনর্ব্যক্ত করেন।

বাইডেন বলেন, আমরা সংঘাত চাই না, আমরা ঠান্ডা লড়াই চাই না, আমরা কোনো জাতিকে যুক্তরাষ্ট্র কিংবা অন্য কোনো অংশীদারকে পছন্দের কথাও বলতে চাই না। যুক্তরাষ্ট্র তাইওয়ান প্রণালিতে শান্তি এবং স্থিতিশীলতা চায়। তবে কেউ এককভাবে কোনোকিছু পরিবর্তন করলে যুক্তরাষ্ট্র তার বিরোধিতা করে বলেও উল্লেখ করেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন।

‘আমরাই ইতিহাসের লেখক’ উল্লেখ করে প্রেসিডেন্ট বাইডেন জাতিসংঘ সনদের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করে বিশ্বকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন আবারও যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করে বলেন, ইরানকে পরমাণু অস্ত্রের অধিকারী হতে দেওয়া হবে না। ইরান যদি তার বাধ্যবাধকতা মেনে চলে তাহলে যুক্তরাষ্ট্র জয়েন্ট কম্প্রিহেনসিভ প্ল্যান অব অ্যাকশনে সমঝোতা করতে পারে।

তিনি কূটনীতির মাধ্যমে পরমাণু অস্ত্রবিহীন বিশ্ব গঠনে বিশ্ব নেতাদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান। তিনি রাশিয়া, চীন এবং উত্তর কোরিয়ার পরমাণু অস্ত্রের হুমকির কথাও উল্লেখ করেন।

ক্ষমতায় আসার পর বিনিয়োগের ক্ষেত্রে জলবায়ু ইস্যুকে গুরুত্ব দিয়ে আসছেন উল্লেখ করে প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, তার সরকার প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে ফিরে এসেছে। তিনি কপ-২৬ এবং বৈশ্বিক উষ্ণতার মাত্রা ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নিয়ে আসতে তার দেশের অঙ্গীকারের কথাও জানান।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় তার সরকারের সাড়ে ৩ হাজার কোটি ডলারের বেশি একটি ব্যয় পরিকল্পনা পাস হওয়ার কথাও উল্লেখ করেন তার ভাষণে।

শেয়ার করুন!