হবিগঞ্জে জলমহাল দখল নিয়ে দু’পক্ষে সংঘর্ষে আহত শতাধিক



জুয়েল চৌধুরী, হবিগঞ্জ প্রতিনিধি/

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার তেঘরিয়া ইউনিয়নের টঙ্গিরঘাট ও রামনগর গ্রামবাসীর মধ্যে জলমহাল থেকে মাছধরা নিয়ে দফায় দফায় সংঘর্ষে মহিলাসহ শতাধিক লোক আহত হয়েছে। শুধু তাই নয় হাসপাতালে এসেও তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। তখন চিকিৎসা দিতে দেরি হওয়ায় ডাক্তার ও ব্রাদারদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে তারা পালিয়ে রক্ষা পায়। খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ হাসপাতালে এলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। গুরুতর আহত ও টেটাবিদ্ধ ১০ জনকে সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে ১০ টা পর্যন্ত দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। খবর পেয়ে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার (ওসি) গোলাম মর্তুজার নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্থানীয়দের সহযোগিতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

জানা যায়, টঙ্গিরঘাট এলাকার জমসেদ আলী ও আফজল মিয়ার মাঝে জলমহাল দখল নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। আজ সকালে বাগাডলি জলমহালে দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে মাছ ধরতে নামে। এতে একে অপরের ওপর হামলা, পাল্টা হামলা চালায়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্য সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে উভয়পক্ষের শতাধিক লোক আহত হয়।

সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে সেবলু মিয়া, জমশেদ আলী, সমশেদ আলী, কিতাব আলী, আজিজুর রহমান, ইয়াসিন মিয়া, নানু মিয়া, মনিরুল হক, আলামিন, ইমন আলী, কালাম মিয়া, সাইদুর রহমান, আব্দুল কাদির, আয়াত আলী, এনামুল হক, কুদ্দুছ আলী, এখলাছ মিয়া, আলা উদ্দিনসহ অন্তত ৩০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এদিকে, হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে এসেও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে উভয় পক্ষ। পরে সদর থানার এসআই ওয়াহেদ গাজীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার (ওসি) গোলাম মর্তুজা সিএনবাংলাদেশ’কে জানান, তিনি নিজে ও সদর থানার একটি টিম ঘটনাস্থলে যান। পরে স্থানীয়দের সহযোগীতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে ফিরিয়ে আনেন।

শেয়ার করুন!