সাংবাদিকের ওপর মাদক কারবারিদের হামলা, পুলিশের দাবি তদন্ত চলছে



বরিশাল প্রতিনিধি/

বরিশালের মুলাদীতে এনায়েত হোসেন রিমন নামে এক সাংবাদিকের ওপর মাদক কারবারিদের হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার রাত ৮টার দিকে মুলাদী থানা-সংলগ্ন সড়কে হামলার শিকার হন তিনি।

এ ঘটনায় রিমনের বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন খান ১৫ জনের নাম উল্লেখসহ থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। তবে পুলিশ বিষয়টি এজাহার হিসেবে নথিভুক্ত করেনি। থানার ওসি বলছেন, বিষয়টির তদন্ত চলছে।

আহত এনায়েত হোসেন রিমন বরিশাল থেকে প্রকাশিত দৈনিক সুন্দরবন-এর মুলাদী উপজেলা প্রতিনিধি। তাঁর ভাষ্য, মাস তিনেক আগে পৌরসভার ৩ ও ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কয়েক মাদক কারবারির নাম উল্লেখ করে সংবাদ প্রকাশ করেন। এর পর থেকে তাঁকে হুমকি দিয়ে আসছিল দুর্বৃত্তরা।

সোমবার রাতে মুলাদী বন্দর থেকে মোটরসাইকেলে করে বাসায় ফিরছিলেন রিমন। থানা-সংলগ্ন সড়কে থাকা গতিরোধকের কাছে ওত পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা তাঁর ওপর হামলা চালায়। এ সময় লাঠিসোটা ও রড দিয়ে বেধড়ক পেটানো হয় তাঁকে। এতে নেতৃত্ব দেন মাদক কারবারি সাইফুল ইসলাম।

তবে রিমনের এমন ভাষ্য অস্বীকার করেন সাইফুল। তিনি দাবি করেন, এনায়েত হোসেন রিমনের ওপর কারা হামলা করেছে, তা জানেন না। উদ্দেশ্যমূলকভাবে তাঁকে আসামি করা হয়েছে।

রিমনের বাবা আনোয়ার হোসেন জানান, রাতেই তিনি থানায় লিখিত অভিযোগ দেন। তবে পুলিশ তদন্তের নাম করে সেটি এজাহার হিসেবে গ্রহণ করেনি। তাঁর ভাষ্য, আসামি তালিকায় ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী এক নেতার সহযোগীদের নাম রয়েছে। যে কারণে পুলিশ অভিযোগ নিতে টালবাহানা করছে।

এ বিষয়ে মুলাদী থানার ওসি মো. মাকসুদুর রহমান আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বলেন, ভুক্তভোগীর বাবা যে অভিযোগপত্র দিয়েছেন, এতে যাঁদের নাম দেওয়া হয়েছে, তাঁরা সবাই ঘটনায় জড়িত কিনা, জানতে তদন্ত চলছে। যাঁদের বিরুদ্ধে প্রমাণ পাওয়া যাবে, তাঁদের বিরুদ্ধেই অভিযোগ নেবে পুলিশ।

শেয়ার করুন!