সাবেক ডিআইজি আনিসের স্ত্রীর জামিন স্থগিত



সিএনবাংলাদেশ ডেস্ক :

পাচারের উদ্দেশ্যে সাত যমজ শিশু হেফাজতে রাখার অভিযোগে করা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত পুলিশের সাবেক ডিআইজি মো. আনিসুর রহমানের স্ত্রী আনোয়ারা রহমানের জামিন স্থগিত করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের সাত সদস্যের বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন। এর আগে গত বুধবার হাইকোর্টের দেওয়া জামিন আদেশ স্থগিত চেয়ে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ। অন্যদিকে আসামি আনোয়ারা রহমানের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনিরুজ্জামান আসাদ।

২০০৬ সালে আনিসুর রহমানের বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার ভাড়া বাড়িতে সাত জোড়া যমজ শিশু থাকার খবর প্রকাশিত হলে আলোড়ন সৃষ্টি হয়। অভিযোগ ওঠে, ওই দম্পতি পাচারের জন্য ওই শিশুদের নিজেদের বাড়িতে রেখেছেন। আনিসুর দম্পতি তখন নিজেদের নির্দোষ দাবি করে বলেন, ওই ১৪ জনই তাদের সন্তান। যদিও গণমাধ্যমের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে বলা হয়, এই শিশুদের সাতজনের জন্মের পাঁচ বছর আগেই আনিসুরের স্ত্রী আনোয়ারা রহমান স্থায়ী জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ করেছিলেন। জন্মনিবন্ধন সনদের তথ্য সঠিক হয়ে থাকলে আনোয়ারা ওই শিশুদের মধ্যে তিনজনকে জন্ম দেন আট মাস সময়ের মধ্যে। এর পর গণমাধ্যমের ওই প্রতিবেদন যুক্ত করে মানবাধিকারকর্মী অ্যাডভোকেট এলিনা খান ২০০৬ সালের ২ জুন রাজধানীর বাড্ডা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। পরে তিনি একটি এজাহার দায়ের করেন, যা ২০০৭ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি মামলা হিসেবে গ্রহণ করেন আদালত।

আলোচিত এ মামলায় ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল আনিসুর রহমান ও তার স্ত্রী আনোয়ারা রহমানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন ঢাকার চার নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল। রায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের অতিরিক্ত প্রত্যেককে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছর কারাদণ্ডের নির্দেশ দেওয়া হয়। এর পর হাইকোর্টের আদেশ স্থগিতের পাশাপাশি জামিন চেয়ে আবেদন করেন সাজাপ্রাপ্ত আনোয়ারা রহমান। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট তার জামিন মঞ্জুর করেন। পরে ওই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। গতকাল ওই আবেদনের শুনানি নিয়ে হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করেন আপিল বিভাগ।

এ মামলায় বিচারিক আদালতে রায়ের সময় আনিসুর পলাতক ছিলেন। আর তার স্ত্রী আনোয়ারা জামিনে ছিলেন। আনিসুর মামলা চলাকালে এ আদালত থেকেই জামিন নিয়ে পালিয়ে যান।

শেয়ার করুন!